নোয়াখালীতে ফেসবুকে স্বাস্থ্য সচিবের সমালোচনা করায় চিকিৎসককে শোকজ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট:

দেশব্যাপী চিকিৎসকদের জন্য পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামাদি রয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীকে বলার বিষয়টিকে স্বাস্থ্য সচিবের মিথ্যাচার উল্লেখ করে এবং নিজের কোনো স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামাদি না পাওয়ায়কে কেন্দ্র করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের এক চিকিৎসকের কাছে কৈফিয়ত চেয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। শনিবার লিখিত চিঠির মাধ্যমে এ কৈফিয়ত তলব করা হয়।
গত ১৬ এপ্রিল বিকেল ৫:২৪ সময় ২৫০ শষ্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার/সহকারী সার্জন (এ্যানেসথেটিস্ট) ডা. আবু তাহের তার নিজের ফেসবুক ওয়ালে স্বাস্থ্য সচিবের এমন সমালোচনা করেন।

নিচের স্ট্যাটাসটি দিয়েছিলেন নোয়াখালি ২৫০ বেড হাসপাতালের এ্যানেসথেসিওলজিস্ট ডা. আবু তাহের।

”আমি নোয়াাখালী ২৫০শয্যা সদর হাসপাতালে কর্মরত একজন এ্যানেসথেসিওলজিস্ট।
রোগীর সবচেয়ে কাছ থেকে আমি চিকিৎসা দেই। গত ১মাসে প্রতিদিন হাসপাতালে গিয়েছি। এখন পর্যন্ত আমি সহ আমার ডিপার্টমেন্ট এর কেউ ১টিও এন৯৫/কেএন৯৫/এফএফপি-২ মাস্ক পাইনি। তাহলে স্বাস্থ্য সচিব মিথ্যাচার কেন করলেন উনি এন৯৫ ইকোয়েভেলেন্ট মাস্ক দিচ্ছেন? তাও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে মিথ্যা বলতেছে? এই মিথ্যাচার এর শাস্তি কি হবে?
গত ১ মাসে আমার ডিপার্টমেন্ট এ ৮জনের জন্য ২টি পিপিই দেওয়া হয়েছে। এই হলো পর্যাপ্ত পিপিই মজুদ। ওহ কি বলবেন আমরা কাজ করিনা? গত ১মাসে ১৫০এর মত অপারেশন আমি একাই করেছি বাকিদের হিসাব দিলাম না। আপনাদের ওসব পিপিই মাস্ক না পেয়েও আমরা বসে নাই বসে থাকবোও না কিন্তু জাতির সামনে মিথ্যাচার কেন করবেন।।
আমি নিজের বেতন এর টাকায় কিনা সার্জিকাল মাস্ক পরে প্রতিদিন অপারেশন করি। পিপিই নিজের টাকায় কিনা আছে, অন্যরা না পরলে একা পরে কি হবে তাই পরি না। ৩মাস কি প্রস্তুতি নিয়েছেন? এখন বলেন এগুলো পাওয়া যাচ্ছে না?
আমাদের অনেকে আজ আপনাদের এসব মিথ্যাচার এর কারনে আক্রান্ত।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এরকম অনেক মিথ্যা প্রস্তুতির নাটক সাজিয়েছেন হাজার কোটি টাকা লোপাট করছে কিছু লুটেরারা দল।”
১৬ এপ্রিল ফেসবুকে এই স্ট্যাটাসের জন্য শনিবার ডা. আবু তাহেরের কাছে কৈফিয়ত চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন ২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেরারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন চৌধুরি। চিঠিতে হাসপাতালে পর্যাপ্ত পিপিইসহ যাবতীয় সুরক্ষা সামগ্রী পর্যাপ্ত থাকা ও সরবরাহ করার পরও এ ধরনের মন্তব্য সরকারী কর্মচারী আচরণ বিধিমালা পরিপন্থি।
এ বিষয়ে একাধিকবার ফোন করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন চৌধুরীর মতামত জানতে চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি।
এ বিষয়ে ডা. আবু তাহের জানান, তিনি যা বলেছেন তা শতভাগ সত্য। যদি কোন কিছু মিথ্যা প্রমাণ হয় তাহলে তিনি যে কোন ধরনের শাস্তি মাথা পেতে নিতে প্রস্তুত আছেন। আগামী তিন দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে এবং এ সময়ের মধ্যেই জবাব দিবেন।
২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সৈয়দ মহি উদ্দিন আবদুল আজিম ডা. আবু তাহেরের শোকজের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» করোনা উপসর্গে চাটখিল ও বেগমগঞ্জে ২ জনের মৃত্যু

» দক্ষিণ আফ্রিকায় ছিনতাইকারীর হাতে বাংলাদেশী নিহত

» রামগঞ্জে শিশু সন্তান নিয়ে পালিয়েছে প্রবাসীর স্ত্রী

» চাটখিলের সন্তান বাঁধনের জিপিএ ফাইভ অর্জন

» নারীর লাশ ঝুলছে, সন্তানের পানিতে,স্বামী পলাতক

» সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের নুতন সভাপতি খোরশেদ আলম সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া

» করোনা দুর্যোগে নোয়াখালীর ৩০ হাজার মানুষের পাশে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম

» বেগমগঞ্জে ঈদের রাতে আ,লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ সহ আহত ৯ গ্রেফতার ৩

» নোয়াখালী সিভিল সার্জন অফিসের ফেসবুক আইডি হ্যাক

» চাটখিলে বাবার বাড়ী থেকে ১ সন্তানের জননীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

নোয়াখালীতে ফেসবুকে স্বাস্থ্য সচিবের সমালোচনা করায় চিকিৎসককে শোকজ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট:

দেশব্যাপী চিকিৎসকদের জন্য পর্যাপ্ত স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামাদি রয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীকে বলার বিষয়টিকে স্বাস্থ্য সচিবের মিথ্যাচার উল্লেখ করে এবং নিজের কোনো স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামাদি না পাওয়ায়কে কেন্দ্র করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের এক চিকিৎসকের কাছে কৈফিয়ত চেয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। শনিবার লিখিত চিঠির মাধ্যমে এ কৈফিয়ত তলব করা হয়।
গত ১৬ এপ্রিল বিকেল ৫:২৪ সময় ২৫০ শষ্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার/সহকারী সার্জন (এ্যানেসথেটিস্ট) ডা. আবু তাহের তার নিজের ফেসবুক ওয়ালে স্বাস্থ্য সচিবের এমন সমালোচনা করেন।

নিচের স্ট্যাটাসটি দিয়েছিলেন নোয়াখালি ২৫০ বেড হাসপাতালের এ্যানেসথেসিওলজিস্ট ডা. আবু তাহের।

”আমি নোয়াাখালী ২৫০শয্যা সদর হাসপাতালে কর্মরত একজন এ্যানেসথেসিওলজিস্ট।
রোগীর সবচেয়ে কাছ থেকে আমি চিকিৎসা দেই। গত ১মাসে প্রতিদিন হাসপাতালে গিয়েছি। এখন পর্যন্ত আমি সহ আমার ডিপার্টমেন্ট এর কেউ ১টিও এন৯৫/কেএন৯৫/এফএফপি-২ মাস্ক পাইনি। তাহলে স্বাস্থ্য সচিব মিথ্যাচার কেন করলেন উনি এন৯৫ ইকোয়েভেলেন্ট মাস্ক দিচ্ছেন? তাও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে মিথ্যা বলতেছে? এই মিথ্যাচার এর শাস্তি কি হবে?
গত ১ মাসে আমার ডিপার্টমেন্ট এ ৮জনের জন্য ২টি পিপিই দেওয়া হয়েছে। এই হলো পর্যাপ্ত পিপিই মজুদ। ওহ কি বলবেন আমরা কাজ করিনা? গত ১মাসে ১৫০এর মত অপারেশন আমি একাই করেছি বাকিদের হিসাব দিলাম না। আপনাদের ওসব পিপিই মাস্ক না পেয়েও আমরা বসে নাই বসে থাকবোও না কিন্তু জাতির সামনে মিথ্যাচার কেন করবেন।।
আমি নিজের বেতন এর টাকায় কিনা সার্জিকাল মাস্ক পরে প্রতিদিন অপারেশন করি। পিপিই নিজের টাকায় কিনা আছে, অন্যরা না পরলে একা পরে কি হবে তাই পরি না। ৩মাস কি প্রস্তুতি নিয়েছেন? এখন বলেন এগুলো পাওয়া যাচ্ছে না?
আমাদের অনেকে আজ আপনাদের এসব মিথ্যাচার এর কারনে আক্রান্ত।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এরকম অনেক মিথ্যা প্রস্তুতির নাটক সাজিয়েছেন হাজার কোটি টাকা লোপাট করছে কিছু লুটেরারা দল।”
১৬ এপ্রিল ফেসবুকে এই স্ট্যাটাসের জন্য শনিবার ডা. আবু তাহেরের কাছে কৈফিয়ত চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন ২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেরারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন চৌধুরি। চিঠিতে হাসপাতালে পর্যাপ্ত পিপিইসহ যাবতীয় সুরক্ষা সামগ্রী পর্যাপ্ত থাকা ও সরবরাহ করার পরও এ ধরনের মন্তব্য সরকারী কর্মচারী আচরণ বিধিমালা পরিপন্থি।
এ বিষয়ে একাধিকবার ফোন করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. ফরিদ উদ্দিন চৌধুরীর মতামত জানতে চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি।
এ বিষয়ে ডা. আবু তাহের জানান, তিনি যা বলেছেন তা শতভাগ সত্য। যদি কোন কিছু মিথ্যা প্রমাণ হয় তাহলে তিনি যে কোন ধরনের শাস্তি মাথা পেতে নিতে প্রস্তুত আছেন। আগামী তিন দিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে এবং এ সময়ের মধ্যেই জবাব দিবেন।
২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সৈয়দ মহি উদ্দিন আবদুল আজিম ডা. আবু তাহেরের শোকজের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd