সুবর্ণচরে মহিষ চুরির মামলা করায় সন্ত্রাসী হামলায় আহত ৫, আটক ১

 

ইউনুছ শিকদার :

সুবর্ণচর উপজেলায় মহিষ চুরির ঘটনায় মামলা করায় বাদীর বসত ঘরে হামলা এবং লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে, হামলার ঘটনায় ২ নারী সহ আহত হয় ৫ জন। একই পরিবারের ৫ জনকে পিটিয় আহত করে কেফায়েত বাহিনীর সন্ত্রাসীরা। ঘটনার সাথে জড়িত কেফায়েত নামের একজনকে আটক করে চরজব্বার থানা পুলিশ, আহতরা সবাই সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনাটি ঘটে শনিবার (১৮এপ্রিল) সুবর্ণচর উপজেলার চর আমান উল্যাহ ইউনিয়নের সাতাশ দ্রোন গ্রামের আব্দুল মোতালেব মেম্বারের বাড়ীতে।

ভুক্তভোগি আব্দুল মোতালেব ওরফে মোতালেব মেম্বার বলেন, গত ১০ মার্চ ২০২০ তারিখে তার পালিত মহিষের পাল থেকে ১ টি মহিষ চুরি হয়ে যায় পরদিন একই কায়দায় একটি পিকআপ নিয়ে আবারো মহিষ চুরি করতে এলে ড্রাইভারসহ রাসেল নামের অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আটক করে মোতালেব মেম্বার সহ এলাকাবাসী, পরে তারা পিকআপ গাড়ীটিসহ চরজব্বার থানায় সোপর্দ করে। পরে রাসেলের মোবাইল কল থেকে জানতে পারেন চরকাজী মোখলেস গ্রামের মৃত সফি উল্যাহর ছেলে কেফায়েত উল্যাহ ঘটনার সাথে জড়িত। পরে তারা রাসেলকে এক নং আসামী করে চরজব্বার থানায় একটি মামলা করেন মামলা নং ১৮১/১৩

থানায় মামলার ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১১এপ্রিল একই কৌশলে আরো দুটি মহিষ চুরি করে নিয়ে যায় এ ঘটনায় আবারো চরজব্বার থানায় অভিযোগ করেন মোতালেব মেম্বার।

থানায় অভিযোগ করায় গতকাল ১৮ এপ্রিল শনিবার সন্ধ্যা ৭ টায় চরকাজী মোখলেস গ্রামের মৃত সফি উল্যাহর পুত্র কেফায়েত(৪০), আব্দুল কাদের (৩৫), নুর নবী(৩৩), মোস্তফা (২৬) সাতাস দ্রোন গ্রামের আশেক আলীর পুত্র কামাল উদ্দিন(৩০), আব্দুল করিম(২৭), একই গ্রামের আরিফ (৩০)সহ ৪/৫জনের অজ্ঞাত লাড়িয়াল বাহিনী দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে মোতালেব মেম্বারের বাড়ীতে ডুকে হামলা, ভাংচুর এবং স্বর্ণালংকার সহ নগদ টাকা নিয়ে যায়। অভিযুক্তরা মোতালেব মেম্বারের স্ত্রী ছামেনা খাতুন(৫৫), মেয়ে ফেরদৌসি আক্তার (২৪), পুত্র মাহফুজুর রহমান (২৬), মুজিবুর রহমান(১৮), অহিদুর রহমান(১৫)কে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে, এতে ছমেনা খাতুন এবং ফেরদৌসি আক্তারের মাথা পেটে যায়। তাদের ডাকচিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে অভিযুক্তরা দৌঁড়ে পালিয়ে যায় বলে জানা যায়।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, অভিযুক্ত কেফায়েত,কাদের, নুরনবী, মোস্তফা ও রাসেলসহ অজ্ঞাত কয়েকজন ব্যক্তিরা নানা অসামাজিক কার্যকলাপ এবং ইয়াবা ও গাঁজা ব্যবসার সাথে জড়িত, তাদের ভয়ে কেউ এলাকায় মুখ খোলেনা। অভিযুক্তদের কাউকে না পাওয়ায় তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে চরজব্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহেদ উদ্দিন বলেন, ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে আটক করা হয়েছে, পূর্বেই চুরি সংক্রান্ত বিষয়ে জিডিসহ একটি অভিযোগ করা হয়েছে আজকের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» করোনা উপসর্গে চাটখিল ও বেগমগঞ্জে ২ জনের মৃত্যু

» দক্ষিণ আফ্রিকায় ছিনতাইকারীর হাতে বাংলাদেশী নিহত

» রামগঞ্জে শিশু সন্তান নিয়ে পালিয়েছে প্রবাসীর স্ত্রী

» চাটখিলের সন্তান বাঁধনের জিপিএ ফাইভ অর্জন

» নারীর লাশ ঝুলছে, সন্তানের পানিতে,স্বামী পলাতক

» সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের নুতন সভাপতি খোরশেদ আলম সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া

» করোনা দুর্যোগে নোয়াখালীর ৩০ হাজার মানুষের পাশে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম

» বেগমগঞ্জে ঈদের রাতে আ,লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ সহ আহত ৯ গ্রেফতার ৩

» নোয়াখালী সিভিল সার্জন অফিসের ফেসবুক আইডি হ্যাক

» চাটখিলে বাবার বাড়ী থেকে ১ সন্তানের জননীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

সুবর্ণচরে মহিষ চুরির মামলা করায় সন্ত্রাসী হামলায় আহত ৫, আটক ১

 

ইউনুছ শিকদার :

সুবর্ণচর উপজেলায় মহিষ চুরির ঘটনায় মামলা করায় বাদীর বসত ঘরে হামলা এবং লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে, হামলার ঘটনায় ২ নারী সহ আহত হয় ৫ জন। একই পরিবারের ৫ জনকে পিটিয় আহত করে কেফায়েত বাহিনীর সন্ত্রাসীরা। ঘটনার সাথে জড়িত কেফায়েত নামের একজনকে আটক করে চরজব্বার থানা পুলিশ, আহতরা সবাই সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনাটি ঘটে শনিবার (১৮এপ্রিল) সুবর্ণচর উপজেলার চর আমান উল্যাহ ইউনিয়নের সাতাশ দ্রোন গ্রামের আব্দুল মোতালেব মেম্বারের বাড়ীতে।

ভুক্তভোগি আব্দুল মোতালেব ওরফে মোতালেব মেম্বার বলেন, গত ১০ মার্চ ২০২০ তারিখে তার পালিত মহিষের পাল থেকে ১ টি মহিষ চুরি হয়ে যায় পরদিন একই কায়দায় একটি পিকআপ নিয়ে আবারো মহিষ চুরি করতে এলে ড্রাইভারসহ রাসেল নামের অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আটক করে মোতালেব মেম্বার সহ এলাকাবাসী, পরে তারা পিকআপ গাড়ীটিসহ চরজব্বার থানায় সোপর্দ করে। পরে রাসেলের মোবাইল কল থেকে জানতে পারেন চরকাজী মোখলেস গ্রামের মৃত সফি উল্যাহর ছেলে কেফায়েত উল্যাহ ঘটনার সাথে জড়িত। পরে তারা রাসেলকে এক নং আসামী করে চরজব্বার থানায় একটি মামলা করেন মামলা নং ১৮১/১৩

থানায় মামলার ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১১এপ্রিল একই কৌশলে আরো দুটি মহিষ চুরি করে নিয়ে যায় এ ঘটনায় আবারো চরজব্বার থানায় অভিযোগ করেন মোতালেব মেম্বার।

থানায় অভিযোগ করায় গতকাল ১৮ এপ্রিল শনিবার সন্ধ্যা ৭ টায় চরকাজী মোখলেস গ্রামের মৃত সফি উল্যাহর পুত্র কেফায়েত(৪০), আব্দুল কাদের (৩৫), নুর নবী(৩৩), মোস্তফা (২৬) সাতাস দ্রোন গ্রামের আশেক আলীর পুত্র কামাল উদ্দিন(৩০), আব্দুল করিম(২৭), একই গ্রামের আরিফ (৩০)সহ ৪/৫জনের অজ্ঞাত লাড়িয়াল বাহিনী দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে মোতালেব মেম্বারের বাড়ীতে ডুকে হামলা, ভাংচুর এবং স্বর্ণালংকার সহ নগদ টাকা নিয়ে যায়। অভিযুক্তরা মোতালেব মেম্বারের স্ত্রী ছামেনা খাতুন(৫৫), মেয়ে ফেরদৌসি আক্তার (২৪), পুত্র মাহফুজুর রহমান (২৬), মুজিবুর রহমান(১৮), অহিদুর রহমান(১৫)কে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে, এতে ছমেনা খাতুন এবং ফেরদৌসি আক্তারের মাথা পেটে যায়। তাদের ডাকচিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে অভিযুক্তরা দৌঁড়ে পালিয়ে যায় বলে জানা যায়।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, অভিযুক্ত কেফায়েত,কাদের, নুরনবী, মোস্তফা ও রাসেলসহ অজ্ঞাত কয়েকজন ব্যক্তিরা নানা অসামাজিক কার্যকলাপ এবং ইয়াবা ও গাঁজা ব্যবসার সাথে জড়িত, তাদের ভয়ে কেউ এলাকায় মুখ খোলেনা। অভিযুক্তদের কাউকে না পাওয়ায় তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে চরজব্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহেদ উদ্দিন বলেন, ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে আটক করা হয়েছে, পূর্বেই চুরি সংক্রান্ত বিষয়ে জিডিসহ একটি অভিযোগ করা হয়েছে আজকের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd