এ কেমন নোয়াখাইল্যা’র আচরণ!

এ কেমন নোয়াখাইল্যা’র আচরণ!
এমন নোয়াখাইল্যা’র সেবা করার কোন ইচ্ছা আমার নেই!

কোভিড-১৯ করোনা এখন বাংলাদেশে ৪র্থ স্ট্যাজ পার করছে যা কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বা সামাজিক সংক্রমণ নামে পরিচিত। অর্থ্যাৎ এসময়টিতে সমাজে ব্যাপকভাবে সংক্রমণ দেখা দেয়। নোয়াখালীতে এ রোগের বিস্তার ইতোমধ্যেই আমরা দেখতে পেয়েছি। এ পর্যায়ে আমি-আপনি সহ যে কেউ আক্রান্ত হতে পারি। সন্দেহভাজন রোগীর করোনা পরীক্ষায় বাংলাদেশে সর্বোচ্চ ১০-১৫ভাগ রোগীর মধ্যে করোনা সনাক্ত হচ্ছে (এখন পর্যন্ত)।

১. গত ২০তারিখে কবিরহাট উপজেলার ৪৯ বছর বয়স্ক একজন বাসিন্দা করোনা সন্দেহভাজন রোগে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোগী মারা গেছেন। বাংলাদেশের রীতি অনুযায়ী লাশ সাধারণত পারিবারিক কবরস্থানেই দাফন করা। সে হিসেবে এই লাশের দাফনও তার পারিবারিক করস্থানে করার ইচ্ছা ছিল তার পরিবারের।

-এলাকায় মৃতদেহ আনা যাবে না ও করস্থ করা যাবে না মর্মে এলাকাবাসির নৃসংশ আন্দোলন! (সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত)

২. কোথাও জায়গা না পেয়ে অবশেষে সরকারি জায়গায় অস্থায়ীভাবে শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে করোনা হাসপাতালের কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। করোনা ইউনিট হচ্ছে স্টেডিয়ামের মূল ভবনে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে ব্যবহৃত বর্জ্য পুড়িয়ে এর ছাই ও আনুসঙ্গিক দ্রব্য মাটিতে পুতে ফেলার জন্য একটি গর্ত করা হয়েছে।

-এখানে হাসপাতাল স্থাপন ও বর্জ্য ফেলা যাবে না মর্মে এলাকাবাসির অভিযোগ!

৩. চর আলগীতে করোনা সন্দেহভাজন ও আক্রান্তদের জন্য ২০শয্যা বিশিষ্ট একটি আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে।

-করোনা আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করা হলেও রোগী কে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসির বাঁধা ও রাস্তায় বিক্ষোভ!

৪. সোনাইমুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স এ চিকিৎসা সেবা দেওয়া ডাক্তারকে বাড়ি থেকে বাড়িওয়ালা কর্তৃক বাহির করে দেওয়া।

৫. বিদেশ থেকে আসা কোন প্রবাসী সম্পর্কে বা জেলার বাহির থেকে আসা লোকজনের সঠিক তথ্য ছাড়াই হরহামেশায় অভিযোগ দাখিল করা। (মন চাইলো আর অভিযোগ করে দিলাম আরকি!)

-নিজেই এসব কোয়ারেন্টিন করতে গিয়ে বিরূপ অবস্থায় পড়েছি।

৬. বাসায় থাকুন, বাসায় থাকুন বলে ফেইস বুকে চিল্লাইয়া নিজেরাই ঘরের বাইরে ঘুরে বেড়ানো; আড্ডা দেওয়া।

-এলাকায় কোয়ারেন্টিন বা সামাজিক দূরত্ব বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এসব দেখেছি ও দেখছি। জেলার কোথাও দেখি নাই – এমনটি কোথাও হয়নি।

৭. এটি আর লিখতে চাই না….. আশাকরি ভবিষতেও আর লিখতে হবে না।

*****আল্লাহ না করুন; প্রথমেই বলেছি এখন সামাজিক সংক্রমণের সময়! আপনার মধ্যে করোনার লক্ষণ পেলো আর এসব জেনে আপনার এলাকাবাসী আপনাকে ঘর থেকে বাহির করে দেওয়ার জন্য বিক্ষোভ করলো এবং এলাকার লোকজন আপনাকে নোয়াখালীর মুছাপুর বা খুলনার সুন্দরবনের কোন এক জঙ্গলে ফেলে দিয়ে আসলো- তখন কেমন লাগবে আপনার!!

****আপনি আক্রান্ত হলেন আর কোন হাসপাতালেই আপনি চিকিৎসা পেলেন না; কেমন লাগবে আপনার!!

***আপনি করোনার লক্ষণ নিয়ে বা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন আর কেউ আপনার এলাকায় বা আপনার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করতে দিলো না- কেমন লাগবে আপনার!!

**হোম কোয়ারেন্টিনের নামে আপনার বাড়িতে পুলিশ গেলে এলাকায় ক্রিমিনাল বলে ছড়িয়ে দিলো কোন অপরপক্ষ- কেমন লাগবে আপনার!!

*আপনি মারা গেলেন আর লোকের অভাবে আপনার লাশ ধর্মীয় নিয়ম না মেনেই লাশ দাফন করতে হলো- কেমন লাগবে আপনার!!

এসব প্রতিবাদ করার নামে আপনি ও আপনারা আইন ভঙ্গ করছেন; সরকারের উদ্দেশ্য ব্যহত করছেন, একসাথে জমায়েত হচ্ছেন; সংক্রমণ ছড়াচ্ছেন; প্রতিবেশীর প্রতি অসহিষ্ঞু আচরণ করছেন। আপনি ও আপনাদের জন্য দিন-রাত একসাথে করে কাজ করে যাচ্ছি আর আপনি ও আপনারা যদি এসব করে বেড়ান তবে আমি আপনার পরিচয় খুব খারাপভাবেই দিব! আপনাদের আচরণ এমন হলে পরিবারজনকে দূরে রেখে আপনাদের সেবা করার ইতিহাস হয়তো ভিন্ন হতে পারে!!

এসব করলে হয়তো একদিন ইতিহাস লেখা হবে- এই নোয়াখাইল্লারা খুবই অমানবিক ছিল; তারা প্রতিবেশীর প্রতি খারাপ আচরণ করেছে!! আর এসবের সহনশীল হলে লেখা হবে- এই নোয়াখাইল্লারাই NSTU এর ভর্তি পরীক্ষার চেয়ে করোনা’র যুগে সারাদেশের মধ্যে সচেতন থেকে সবচেয়ে মানবিক আচরণ করেছে।

মনে রাখতে হবে- নোভেল করোনার কোন ঔষধ এখনো আবিস্কার হয়নি; স্বাস্থ্যবিধি ও একজনের প্রতি আরেকজনের সহমর্মিতাই পারে করোনা’র বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী হতে।
আবার বলবো সচেতন হোন, সচেতন হোন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন ও অপরকে উৎসহ দিয়ে সহযোগিতা করুন।

নোটঃ লিখাটি নোয়াখালী জেলায় কর্মরত এক্সিকিউটিভ ম্যাজেট্রেট রোকনুজ্জামান রোকনের ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া)

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» রামগঞ্জে সরকারী সম্পত্তি জবর-দখল নিয়ে দুই গ্রুপ মুখোমুখি

» রামগঞ্জে বখাটে চাচার হাতধরে পালিয়েছে প্রবাসীর স্ত্রী মুন্নী

» সুবর্নচর ওয়াপদা যুবদলের সভাপতি হতে চান সৈকত

» বেগমগঞ্জে মানব পাচারকারী দলের নারী সদস্য আটক

» অসহায় মেয়ের নিজ খরছে বিয়ে দিলেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন

» রামগঞ্জে সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন

» করোনাতে চাটখিল ও সোনাইমুড়ীতে ২জনের মৃত্যু

» রামগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণ শেষে হত্যা, হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

» রামগঞ্জে ইডেনের ছাত্রী অন্তসত্তা গৃহবধু আয়নাকে হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতার

» বেগমগঞ্জে বরকত উল্যাহ বুলুর বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

এ কেমন নোয়াখাইল্যা’র আচরণ!

এ কেমন নোয়াখাইল্যা’র আচরণ!
এমন নোয়াখাইল্যা’র সেবা করার কোন ইচ্ছা আমার নেই!

কোভিড-১৯ করোনা এখন বাংলাদেশে ৪র্থ স্ট্যাজ পার করছে যা কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বা সামাজিক সংক্রমণ নামে পরিচিত। অর্থ্যাৎ এসময়টিতে সমাজে ব্যাপকভাবে সংক্রমণ দেখা দেয়। নোয়াখালীতে এ রোগের বিস্তার ইতোমধ্যেই আমরা দেখতে পেয়েছি। এ পর্যায়ে আমি-আপনি সহ যে কেউ আক্রান্ত হতে পারি। সন্দেহভাজন রোগীর করোনা পরীক্ষায় বাংলাদেশে সর্বোচ্চ ১০-১৫ভাগ রোগীর মধ্যে করোনা সনাক্ত হচ্ছে (এখন পর্যন্ত)।

১. গত ২০তারিখে কবিরহাট উপজেলার ৪৯ বছর বয়স্ক একজন বাসিন্দা করোনা সন্দেহভাজন রোগে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোগী মারা গেছেন। বাংলাদেশের রীতি অনুযায়ী লাশ সাধারণত পারিবারিক কবরস্থানেই দাফন করা। সে হিসেবে এই লাশের দাফনও তার পারিবারিক করস্থানে করার ইচ্ছা ছিল তার পরিবারের।

-এলাকায় মৃতদেহ আনা যাবে না ও করস্থ করা যাবে না মর্মে এলাকাবাসির নৃসংশ আন্দোলন! (সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত)

২. কোথাও জায়গা না পেয়ে অবশেষে সরকারি জায়গায় অস্থায়ীভাবে শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে করোনা হাসপাতালের কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। করোনা ইউনিট হচ্ছে স্টেডিয়ামের মূল ভবনে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে ব্যবহৃত বর্জ্য পুড়িয়ে এর ছাই ও আনুসঙ্গিক দ্রব্য মাটিতে পুতে ফেলার জন্য একটি গর্ত করা হয়েছে।

-এখানে হাসপাতাল স্থাপন ও বর্জ্য ফেলা যাবে না মর্মে এলাকাবাসির অভিযোগ!

৩. চর আলগীতে করোনা সন্দেহভাজন ও আক্রান্তদের জন্য ২০শয্যা বিশিষ্ট একটি আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে।

-করোনা আইসোলেশন সেন্টার স্থাপন করা হলেও রোগী কে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসির বাঁধা ও রাস্তায় বিক্ষোভ!

৪. সোনাইমুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স এ চিকিৎসা সেবা দেওয়া ডাক্তারকে বাড়ি থেকে বাড়িওয়ালা কর্তৃক বাহির করে দেওয়া।

৫. বিদেশ থেকে আসা কোন প্রবাসী সম্পর্কে বা জেলার বাহির থেকে আসা লোকজনের সঠিক তথ্য ছাড়াই হরহামেশায় অভিযোগ দাখিল করা। (মন চাইলো আর অভিযোগ করে দিলাম আরকি!)

-নিজেই এসব কোয়ারেন্টিন করতে গিয়ে বিরূপ অবস্থায় পড়েছি।

৬. বাসায় থাকুন, বাসায় থাকুন বলে ফেইস বুকে চিল্লাইয়া নিজেরাই ঘরের বাইরে ঘুরে বেড়ানো; আড্ডা দেওয়া।

-এলাকায় কোয়ারেন্টিন বা সামাজিক দূরত্ব বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এসব দেখেছি ও দেখছি। জেলার কোথাও দেখি নাই – এমনটি কোথাও হয়নি।

৭. এটি আর লিখতে চাই না….. আশাকরি ভবিষতেও আর লিখতে হবে না।

*****আল্লাহ না করুন; প্রথমেই বলেছি এখন সামাজিক সংক্রমণের সময়! আপনার মধ্যে করোনার লক্ষণ পেলো আর এসব জেনে আপনার এলাকাবাসী আপনাকে ঘর থেকে বাহির করে দেওয়ার জন্য বিক্ষোভ করলো এবং এলাকার লোকজন আপনাকে নোয়াখালীর মুছাপুর বা খুলনার সুন্দরবনের কোন এক জঙ্গলে ফেলে দিয়ে আসলো- তখন কেমন লাগবে আপনার!!

****আপনি আক্রান্ত হলেন আর কোন হাসপাতালেই আপনি চিকিৎসা পেলেন না; কেমন লাগবে আপনার!!

***আপনি করোনার লক্ষণ নিয়ে বা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন আর কেউ আপনার এলাকায় বা আপনার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করতে দিলো না- কেমন লাগবে আপনার!!

**হোম কোয়ারেন্টিনের নামে আপনার বাড়িতে পুলিশ গেলে এলাকায় ক্রিমিনাল বলে ছড়িয়ে দিলো কোন অপরপক্ষ- কেমন লাগবে আপনার!!

*আপনি মারা গেলেন আর লোকের অভাবে আপনার লাশ ধর্মীয় নিয়ম না মেনেই লাশ দাফন করতে হলো- কেমন লাগবে আপনার!!

এসব প্রতিবাদ করার নামে আপনি ও আপনারা আইন ভঙ্গ করছেন; সরকারের উদ্দেশ্য ব্যহত করছেন, একসাথে জমায়েত হচ্ছেন; সংক্রমণ ছড়াচ্ছেন; প্রতিবেশীর প্রতি অসহিষ্ঞু আচরণ করছেন। আপনি ও আপনাদের জন্য দিন-রাত একসাথে করে কাজ করে যাচ্ছি আর আপনি ও আপনারা যদি এসব করে বেড়ান তবে আমি আপনার পরিচয় খুব খারাপভাবেই দিব! আপনাদের আচরণ এমন হলে পরিবারজনকে দূরে রেখে আপনাদের সেবা করার ইতিহাস হয়তো ভিন্ন হতে পারে!!

এসব করলে হয়তো একদিন ইতিহাস লেখা হবে- এই নোয়াখাইল্লারা খুবই অমানবিক ছিল; তারা প্রতিবেশীর প্রতি খারাপ আচরণ করেছে!! আর এসবের সহনশীল হলে লেখা হবে- এই নোয়াখাইল্লারাই NSTU এর ভর্তি পরীক্ষার চেয়ে করোনা’র যুগে সারাদেশের মধ্যে সচেতন থেকে সবচেয়ে মানবিক আচরণ করেছে।

মনে রাখতে হবে- নোভেল করোনার কোন ঔষধ এখনো আবিস্কার হয়নি; স্বাস্থ্যবিধি ও একজনের প্রতি আরেকজনের সহমর্মিতাই পারে করোনা’র বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী হতে।
আবার বলবো সচেতন হোন, সচেতন হোন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন ও অপরকে উৎসহ দিয়ে সহযোগিতা করুন।

নোটঃ লিখাটি নোয়াখালী জেলায় কর্মরত এক্সিকিউটিভ ম্যাজেট্রেট রোকনুজ্জামান রোকনের ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া)

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd