চাটখিলের খিলপাড়া স্কুলের এস,এস,সি ১৪ ব্যাচের অস্বচ্ছল সহপাঠীদের পাশে অন্য সহপাঠীরা

 

আমাদেরও অস্বচ্ছল বন্ধুর পরিবার যখন আমাদের উপহার পেয়ে খুশি হয়, সেটিই আমাদের তৃপ্তি। আমরা বন্ধু হয়ে একে অপরের পাশে দাঁড়াতে চাই। সকলে মিলে এ সংকট মোকাবেলা করতে চাই।বন্ধুর বাসায় পাঠানো আমাদের উপহার!
আমাদের এক একজন শিক্ষার্থী বন্ধুর পরিবারের জন্য আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করেছি !
অামরা চেষ্টা করেছি সব বন্ধুর বাসায় অন্তত
এক মাসের নিত্য প্রয়জনীয় খাদ্য সামগ্রী পোঁছে দেওয়ার। এমনই বলছেন চাটখিল উপজেলার খিলপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৪ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী শিক্ষার্থীরা।

তাদর ভাষায়, করোনা ভাইরাস সৃষ্ট পরিস্থিতিতে কার্যত সারাদেশ অচল হয়ে পড়েছে। এতে যেমন কর্মহীন হয়ে পড়েছে নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষরা, তেমনি নিম্ন মধ্যবিত্তরাও পড়ছেন বিপাকে। নিম্ন বিত্তরা সরকারি, বেসরকারিভাবে বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা পেলেও মধ্যবিত্তরা মুখ বুজে থাকছেন। আর এমনি সংকটে পড়েছে,খিলপাড়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৪ ব্যাচ অস্বচ্ছল শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবার।কোভিড-১৯ মহামারি আকার ধারণ করায় সারাবিশ্বের মতো আমরা একটা সংকটময়কাল অতিবাহিত করছি। অামরা তাদের বন্ধু হিসেবে তাদের প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা রয়েছে। আমরা চাইনা, আামাদের কোন ভাই, বন্ধু, কোন দুর্বিষহ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করুক। আমরা একে অপরের ভাই বন্ধু হয়ে পাশে থাকতে চাই। তাই আমাদের একজন ভাই বন্ধুর বাসায় এই সংকটে ত্রাণ যাবে না, যাবে পাশে থাকার উপহার। খাদ্যসামগ্রীর উপহার বাসায় পৌঁছায় দিছি ।

খিলপাড়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৪ ব্যাচ একজন শিক্ষার্থী জানান তাদের সহপাঠী বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। বেশিরভাগই টিউশানি করে নিজেদের পড়ালেখার খরচ যোগান, সংসারের খরচও যোগান। চলমান পরিস্থিতিতে তারা গৃহবন্দী। তাদের আয়ের পথ বন্ধ। এতে করে সংকটে দিন কাটাচ্ছে তাদের পরিবারগুলো। তাদের কথা চিন্তা করেই আমরা এ উদ্যোগ নেই।
তিনি বলেন, আমাদের এ কাজে সাহায্য করছেন অামাদের প্রবাসী বন্ধু ও দেশে থাকা বন্ধু মহল। আমরা নগদ টাকা নিচ্ছি। খাদ্যসামগ্রী নিচ্ছি। যে যার পারছেন, যেভাবে পারছেন সহযোগিতা করছেন। আমরা সেই সহযোগিতা অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে বন্টন করে দেবার ব্যবস্থা করছি। ইতোমধ্যে আমার এলাকায় পরিবারকে সহায়তা করেছি। উপহারগুলো সহপাঠী বন্ধু দের পরিবারের হাতে এসব গোপনে এসব উপহার তুলে দিয়েছি এবং তুলে দেওয়ার কাজ অব্যহত অাছে ।
আমরা সবাই মিলে এই সংকট পার করবো ইনশাল্লাহ

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» চাটখিলের সন্তান বাঁধনের জিপিএ ফাইভ অর্জন

» নারীর লাশ ঝুলছে, সন্তানের পানিতে,স্বামী পলাতক

» সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবের নুতন সভাপতি খোরশেদ আলম সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া

» করোনা দুর্যোগে নোয়াখালীর ৩০ হাজার মানুষের পাশে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম

» বেগমগঞ্জে ঈদের রাতে আ,লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ সহ আহত ৯ গ্রেফতার ৩

» নোয়াখালী সিভিল সার্জন অফিসের ফেসবুক আইডি হ্যাক

» চাটখিলে বাবার বাড়ী থেকে ১ সন্তানের জননীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

» করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির কয়েক ঘন্টা পরে মারা গেলেন বেগমগঞ্জের একজন

» স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘উইফরইউ পাঠশালা’র ১২০ শিক্ষার্থী পেল ঈদ উপহার ও নগদ অর্থ

» নোয়াখালীতে নুতন আক্রান্ত ৭৭, চাটখিল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী বিভাগ বাদে সব বন্ধ

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

চাটখিলের খিলপাড়া স্কুলের এস,এস,সি ১৪ ব্যাচের অস্বচ্ছল সহপাঠীদের পাশে অন্য সহপাঠীরা

 

আমাদেরও অস্বচ্ছল বন্ধুর পরিবার যখন আমাদের উপহার পেয়ে খুশি হয়, সেটিই আমাদের তৃপ্তি। আমরা বন্ধু হয়ে একে অপরের পাশে দাঁড়াতে চাই। সকলে মিলে এ সংকট মোকাবেলা করতে চাই।বন্ধুর বাসায় পাঠানো আমাদের উপহার!
আমাদের এক একজন শিক্ষার্থী বন্ধুর পরিবারের জন্য আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করেছি !
অামরা চেষ্টা করেছি সব বন্ধুর বাসায় অন্তত
এক মাসের নিত্য প্রয়জনীয় খাদ্য সামগ্রী পোঁছে দেওয়ার। এমনই বলছেন চাটখিল উপজেলার খিলপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৪ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী শিক্ষার্থীরা।

তাদর ভাষায়, করোনা ভাইরাস সৃষ্ট পরিস্থিতিতে কার্যত সারাদেশ অচল হয়ে পড়েছে। এতে যেমন কর্মহীন হয়ে পড়েছে নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী মানুষরা, তেমনি নিম্ন মধ্যবিত্তরাও পড়ছেন বিপাকে। নিম্ন বিত্তরা সরকারি, বেসরকারিভাবে বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা পেলেও মধ্যবিত্তরা মুখ বুজে থাকছেন। আর এমনি সংকটে পড়েছে,খিলপাড়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৪ ব্যাচ অস্বচ্ছল শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবার।কোভিড-১৯ মহামারি আকার ধারণ করায় সারাবিশ্বের মতো আমরা একটা সংকটময়কাল অতিবাহিত করছি। অামরা তাদের বন্ধু হিসেবে তাদের প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা রয়েছে। আমরা চাইনা, আামাদের কোন ভাই, বন্ধু, কোন দুর্বিষহ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করুক। আমরা একে অপরের ভাই বন্ধু হয়ে পাশে থাকতে চাই। তাই আমাদের একজন ভাই বন্ধুর বাসায় এই সংকটে ত্রাণ যাবে না, যাবে পাশে থাকার উপহার। খাদ্যসামগ্রীর উপহার বাসায় পৌঁছায় দিছি ।

খিলপাড়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৪ ব্যাচ একজন শিক্ষার্থী জানান তাদের সহপাঠী বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। বেশিরভাগই টিউশানি করে নিজেদের পড়ালেখার খরচ যোগান, সংসারের খরচও যোগান। চলমান পরিস্থিতিতে তারা গৃহবন্দী। তাদের আয়ের পথ বন্ধ। এতে করে সংকটে দিন কাটাচ্ছে তাদের পরিবারগুলো। তাদের কথা চিন্তা করেই আমরা এ উদ্যোগ নেই।
তিনি বলেন, আমাদের এ কাজে সাহায্য করছেন অামাদের প্রবাসী বন্ধু ও দেশে থাকা বন্ধু মহল। আমরা নগদ টাকা নিচ্ছি। খাদ্যসামগ্রী নিচ্ছি। যে যার পারছেন, যেভাবে পারছেন সহযোগিতা করছেন। আমরা সেই সহযোগিতা অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে বন্টন করে দেবার ব্যবস্থা করছি। ইতোমধ্যে আমার এলাকায় পরিবারকে সহায়তা করেছি। উপহারগুলো সহপাঠী বন্ধু দের পরিবারের হাতে এসব গোপনে এসব উপহার তুলে দিয়েছি এবং তুলে দেওয়ার কাজ অব্যহত অাছে ।
আমরা সবাই মিলে এই সংকট পার করবো ইনশাল্লাহ

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd