রামগঞ্জে নির্যাতনের ১৮দিনেও মামলা করতে পারেনি গৃহবধু

আবু তাহের, রামগঞ্জ ঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ৮নং করপাড়া ইউনিয়নের ভাটিয়ালপুর গ্রামের বেপারী বাড়িতে প্রকাশ্যে পাশবিক নির্যাতনের পর ১৮দিনেও মামলা করতে পারেনি শাহীন আক্তার নামের এক গৃহবধু। স্থানীয় বখাটে নাইম হোসেন ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের নানা হুমকি-ধমকিতে নির্যাতনে শিকার গৃহবধুর পরিবার পরিজন নিয়ে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে। শুক্রবার (১০জুলাই) দুপুরে গৃহবধু শাহিন এবং তার মা রৌশন আক্তার সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করে। গৃহবধু শাহীন যাতে স্থানীয় মোহাম্মদীয়া বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে না যেতে পারে সেজন্য বখাটে নাইম বাড়ির সামনে পাহারা বসিয়েছে। সন্ত্রাসী নাইম উপজেলার করপাড়া ইউনিয়নের ভাটিয়ালপুর বেপারী বাড়ির আঃ রহিমের ছেলে।
সুত্রে সুত্রে,উপজেলার করপাড়া ইউপির সাবেক মহিলা মেম্বার রৌশণ আক্তারের ল²ীপুর আদালতে জি.আর ১৮২/১৯ মামলা বিচারাধীন। উক্ত মামলা প্রত্যাহার করতে বখাটে নাইম হোসেনসহ অন্যান্য আসামী ও তাদের স্বজনরা গৃহবধু শাহীন ও তার মাকে নানা ভয়ভীতি অব্যাহত রেখেছে। এক পর্যায়ে গৃহবধু শাহিন আক্তার হুমকী-ধমকীর প্রতিবাদ করে মামলা তুলবেনা বলে জানিয়ে দেয়। এতে ক্ষীপ্ত হয়ে ২৩ জুন বিকেলে সন্ত্রাসী মোঃ নাইম হোসেন তার সাংঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে অর্তকিতভাবে গৃহবধু শাহিন আক্তারকে জনসম্মুখে বেদম মারধর করে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে নাইম ও তার লোকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় এবং বাড়ির লোকজন গৃহবধু শাহীনকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি দেখে স্বজনেরা তাকে প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করে। গৃহবধু শাহিন আক্তার বলেন,আসামীরা মামলা প্রত্যাহার করতে দিন-রাত আমার মাকে হুমকি-ধমকি দেয়। জীবন রক্ষার্থে মা আমার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। ২৩ জুন নাইম উত্তেজিত হয়ে তার লোকজন নিয়ে সবার সামনে আমাকে এলোপাতাড়ি পিটানো শুরু করে। একপর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে মাটিয়ে লুটে পড়লে মৃত ভেবে চলে গেলে লোকজনে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। শাহীন আক্তারের মা মামলার বাদি রৌশন আক্তার বলেন,নাইম এলাকার মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তার ভয়ে এলাকায় কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।
মোহাম্মদিয়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এমদাদুল হক এমদাদ বলেন,বিষয়টি আমি জানিনা। এ নিয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে কেউ কোন অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» হাতিয়ায় বোনকে গলা টিপে হত্যা করল ভাই

» সোনাইমুড়ীর জয়াগে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে তরুন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের মৃত্যু

» বেগমগঞ্জে গোসল নিয়ে দ্বন্ধে যুবককে হত্যা, আটক ৫

» সোনাইমুড়ীতে পারিবারিক বিরোধে অবরুদ্ধ এক পরিবারের মানবেতর জীবন-যাপন

» করোনায় দক্ষিণ আফ্রিকায় বেগমগঞ্জের যুবকের মৃত্যু

» ইসলামিক ফোরাম অব আফ্রিকা ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

» সুবর্ণচরে বয়স্ক ভাতার ঘুষ নিয়ে দ্বন্ধের জের ধরে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা, আটক ৩

» সোনাইমুড়ীতে ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর পরিবারকে এলাকা ছাড়ার হুমকি

» নোয়াখালীতে সুদের টাকার জন্য ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ, লাশ নিয়ে বিক্ষোভ

» চাটখিলের খিলপাড়াতে ইসলামী ব্যাংকের ২য় শাখার কার্যক্রম শুরু

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

রামগঞ্জে নির্যাতনের ১৮দিনেও মামলা করতে পারেনি গৃহবধু

আবু তাহের, রামগঞ্জ ঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ৮নং করপাড়া ইউনিয়নের ভাটিয়ালপুর গ্রামের বেপারী বাড়িতে প্রকাশ্যে পাশবিক নির্যাতনের পর ১৮দিনেও মামলা করতে পারেনি শাহীন আক্তার নামের এক গৃহবধু। স্থানীয় বখাটে নাইম হোসেন ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের নানা হুমকি-ধমকিতে নির্যাতনে শিকার গৃহবধুর পরিবার পরিজন নিয়ে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে। শুক্রবার (১০জুলাই) দুপুরে গৃহবধু শাহিন এবং তার মা রৌশন আক্তার সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করে। গৃহবধু শাহীন যাতে স্থানীয় মোহাম্মদীয়া বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে না যেতে পারে সেজন্য বখাটে নাইম বাড়ির সামনে পাহারা বসিয়েছে। সন্ত্রাসী নাইম উপজেলার করপাড়া ইউনিয়নের ভাটিয়ালপুর বেপারী বাড়ির আঃ রহিমের ছেলে।
সুত্রে সুত্রে,উপজেলার করপাড়া ইউপির সাবেক মহিলা মেম্বার রৌশণ আক্তারের ল²ীপুর আদালতে জি.আর ১৮২/১৯ মামলা বিচারাধীন। উক্ত মামলা প্রত্যাহার করতে বখাটে নাইম হোসেনসহ অন্যান্য আসামী ও তাদের স্বজনরা গৃহবধু শাহীন ও তার মাকে নানা ভয়ভীতি অব্যাহত রেখেছে। এক পর্যায়ে গৃহবধু শাহিন আক্তার হুমকী-ধমকীর প্রতিবাদ করে মামলা তুলবেনা বলে জানিয়ে দেয়। এতে ক্ষীপ্ত হয়ে ২৩ জুন বিকেলে সন্ত্রাসী মোঃ নাইম হোসেন তার সাংঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে অর্তকিতভাবে গৃহবধু শাহিন আক্তারকে জনসম্মুখে বেদম মারধর করে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে নাইম ও তার লোকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় এবং বাড়ির লোকজন গৃহবধু শাহীনকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি দেখে স্বজনেরা তাকে প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করে। গৃহবধু শাহিন আক্তার বলেন,আসামীরা মামলা প্রত্যাহার করতে দিন-রাত আমার মাকে হুমকি-ধমকি দেয়। জীবন রক্ষার্থে মা আমার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। ২৩ জুন নাইম উত্তেজিত হয়ে তার লোকজন নিয়ে সবার সামনে আমাকে এলোপাতাড়ি পিটানো শুরু করে। একপর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে মাটিয়ে লুটে পড়লে মৃত ভেবে চলে গেলে লোকজনে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। শাহীন আক্তারের মা মামলার বাদি রৌশন আক্তার বলেন,নাইম এলাকার মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তার ভয়ে এলাকায় কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।
মোহাম্মদিয়া বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এমদাদুল হক এমদাদ বলেন,বিষয়টি আমি জানিনা। এ নিয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে কেউ কোন অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd