রামগঞ্জে ইডেনের ছাত্রী অন্তসত্তা গৃহবধু আয়নাকে হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতার

আবু তাহেের রামগঞ্জ ঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে তানজিলা রহমান আয়না (২৪) নামের ৯মাসের অন্তসত্তা এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে। রামগঞ্জ থানার পুলিশ ওই গৃহবধুর স্বামী জহিরুল ইসলাম জনিকে গ্রেফতার করে লক্ষ্মীপুর জেলা কারাগারে প্রেরন করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ৮আগষ্ট (শনিবার) সকাল ১১টায় উপজেলার ২নং নোয়াগাঁও ইউনিয়নের সাউধের খিল গ্রামের মোল্যা বাড়িতে। জহিরুল ইসলাম জনি মোল্যা বাড়ির মোঃ মহসিন মোল্যার বড় ছেলে। সৃষ্ট ঘটনায় মৃত তাজিলার বড় ভাই সাইফুর রহমান বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে রামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। রামগঞ্জ থানার এসআই মোঃ হুমায়ুনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। মৃত গৃহবধু তানজিলা আক্তার আয়না ঢাকা ইডেন মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্রী। লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে ৯আগষ্ট রবিবার দিবাগত গভীর রাতে মৃর্তের লাশ বরিশাল তার পিত্রালয়ে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রামগঞ্জ উপজেলার ২নং নোয়াগাঁও ইউনিয়নের সাউধেরখিল গ্রামের মোল্যা বাড়ির মহসিনের ছেলে মোঃ জহিরুল ইসলাম জনির সাথে ২০১৬ইং সনে বরিশাল সদর কাউনিয়া থানার পান্থপথ নাবিকনীড়ের ভাটিখানা গ্রামের সাইদুর রহমানের মেয়ে তানজিলা আক্তারের বিয়ে হয়। পরিবারের লোকজন তানজিলার আগের আরেকটি বিয়ের সংবাদ গোপন রেখে জনির সাথে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে। পরে জনি বিষয়টা জানাজানি হলে দুই পরিবারের মধ্যে পারিবারিক অশান্তি শুরু হয়। পরে দুই পরিবারের দফায় দফায় বৈঠকের পর তানজিলাকে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ সাউধেরখিল গ্রামে স্বামীর বাড়িতে নিয়ে আসে। এরই ফাকে গৃহবধু অন্তসত্তা হয়ে গত ৯মাস স্বামীর বাড়ির বসবাসের এক পর্যায়ে গত ৮আগষ্ট শনিবার সকাল ১১টায় অসুস্থবোধ করলে স্বামী জনি দ্রুত প্রথমে একটি প্রাইভেট হাসপাতাল ও পরে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতাল নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করে। পরে তানজিলার ভাই বোনের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে বরিশাল থেকে রামগঞ্জ এসে স্বামী জহিরুল ইসলাম ও তার বাবা, মা,চাচী এবং ছোট ভাই সহ ৫জনকে আসামী করে রামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। গৃহবধু তানজিলার মৃত্যুর পর থেকে শশুর-শাশুড়ী দেবর চাচী শাশুড়ী পলাতক রয়েছে।
এ ব্যাপারে নিহতের ভাই সাইফুর রহমান জানান, আমার বোনকে জনি ও তার পরিবারের লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বেশ কয়েকমাস থেকে তানজিলার স্বামী আমাদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। তবে আমার বোন মাঝে মাঝে গোপনে আমাদের সাথে কথা বলতো। শুক্রবার রাতেও সে আমাদের সাথে কথা বলেছে। এরপর শনিবার সকালে তার স্বামী জনি ফোন করে আমাদের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে।
রামগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, গৃহবধু তানজিলা মৃত্যুর ঘটনায় মামলা হয়েছে। স্বামী জহিরুল ইসলাম জনিকে গ্রেফতার করে লক্ষ্মীপুর জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» পেঁয়াজের ঝাঁজ কি পৌঁছে না মন্ত্রিপাড়ায়?

» দক্ষিণ আফ্রিকায় ইসলামিক ফোরামের শিক্ষা সফর

» দক্ষিণ আফ্রিকায় নিজ দোকান কর্মচারী কৃষ্ণাঙ্গের হাতে ফেনীর যুবক খুন

» চাটখিলে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী ভিপি নিজামের গণসংযোগ

» রোগীর মৃত্যুর খবর নিয়ে চাটখিল স্কয়ার হাসপাতালের প্রতিবাদ

» চাঁদাবাজির অভিযোগে সোনাইমুড়ী থানার এসআই ফারুককে প্রত্যাহার

» আমেরিকা ও সুইডেনে থেকেও রামগঞ্জে দুই মাদ্রাসা শিক্ষক স্বপদে বহাল

» চাটখিলে সাবেক ছাত্রনেতা জহিরের উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক পদে প্রার্থীতা ঘোষনা

» মাত্র এক বছরেই ব্যপক প্রশংসনীয় কাজে ‘মানবতার কল্যাণে আমরা’

» তিন নেতার বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে প্রশ্নবিদ্ধ লক্ষ্মীপুর যুবলীগ

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

রামগঞ্জে ইডেনের ছাত্রী অন্তসত্তা গৃহবধু আয়নাকে হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতার

আবু তাহেের রামগঞ্জ ঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে তানজিলা রহমান আয়না (২৪) নামের ৯মাসের অন্তসত্তা এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে। রামগঞ্জ থানার পুলিশ ওই গৃহবধুর স্বামী জহিরুল ইসলাম জনিকে গ্রেফতার করে লক্ষ্মীপুর জেলা কারাগারে প্রেরন করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ৮আগষ্ট (শনিবার) সকাল ১১টায় উপজেলার ২নং নোয়াগাঁও ইউনিয়নের সাউধের খিল গ্রামের মোল্যা বাড়িতে। জহিরুল ইসলাম জনি মোল্যা বাড়ির মোঃ মহসিন মোল্যার বড় ছেলে। সৃষ্ট ঘটনায় মৃত তাজিলার বড় ভাই সাইফুর রহমান বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে রামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। রামগঞ্জ থানার এসআই মোঃ হুমায়ুনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। মৃত গৃহবধু তানজিলা আক্তার আয়না ঢাকা ইডেন মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্রী। লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে ৯আগষ্ট রবিবার দিবাগত গভীর রাতে মৃর্তের লাশ বরিশাল তার পিত্রালয়ে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রামগঞ্জ উপজেলার ২নং নোয়াগাঁও ইউনিয়নের সাউধেরখিল গ্রামের মোল্যা বাড়ির মহসিনের ছেলে মোঃ জহিরুল ইসলাম জনির সাথে ২০১৬ইং সনে বরিশাল সদর কাউনিয়া থানার পান্থপথ নাবিকনীড়ের ভাটিখানা গ্রামের সাইদুর রহমানের মেয়ে তানজিলা আক্তারের বিয়ে হয়। পরিবারের লোকজন তানজিলার আগের আরেকটি বিয়ের সংবাদ গোপন রেখে জনির সাথে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে। পরে জনি বিষয়টা জানাজানি হলে দুই পরিবারের মধ্যে পারিবারিক অশান্তি শুরু হয়। পরে দুই পরিবারের দফায় দফায় বৈঠকের পর তানজিলাকে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ সাউধেরখিল গ্রামে স্বামীর বাড়িতে নিয়ে আসে। এরই ফাকে গৃহবধু অন্তসত্তা হয়ে গত ৯মাস স্বামীর বাড়ির বসবাসের এক পর্যায়ে গত ৮আগষ্ট শনিবার সকাল ১১টায় অসুস্থবোধ করলে স্বামী জনি দ্রুত প্রথমে একটি প্রাইভেট হাসপাতাল ও পরে রামগঞ্জ সরকারী হাসপাতাল নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করে। পরে তানজিলার ভাই বোনের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে বরিশাল থেকে রামগঞ্জ এসে স্বামী জহিরুল ইসলাম ও তার বাবা, মা,চাচী এবং ছোট ভাই সহ ৫জনকে আসামী করে রামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। গৃহবধু তানজিলার মৃত্যুর পর থেকে শশুর-শাশুড়ী দেবর চাচী শাশুড়ী পলাতক রয়েছে।
এ ব্যাপারে নিহতের ভাই সাইফুর রহমান জানান, আমার বোনকে জনি ও তার পরিবারের লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বেশ কয়েকমাস থেকে তানজিলার স্বামী আমাদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। তবে আমার বোন মাঝে মাঝে গোপনে আমাদের সাথে কথা বলতো। শুক্রবার রাতেও সে আমাদের সাথে কথা বলেছে। এরপর শনিবার সকালে তার স্বামী জনি ফোন করে আমাদের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে।
রামগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, গৃহবধু তানজিলা মৃত্যুর ঘটনায় মামলা হয়েছে। স্বামী জহিরুল ইসলাম জনিকে গ্রেফতার করে লক্ষ্মীপুর জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd