ADS170638-2

শিশুর জন্য আইফোন বা আইপ্যাডকে নিরাপদ করুন ২০ সেকেন্ডে

আপনার আইফোন বা আইপ্যাডটা মাঝে মধ্যেই বাচ্চার দখলে থাকতে পারে। এমনকি অনেকে জন্মদিন বা অন্য কোনো উপলক্ষে বাচ্চাকে উপহারও দিতে পারেন।
দারুণ জনপ্রিয় একটি স্মার্টফোন বাচ্চার হাতে দিচ্ছেন ঠিক আছে। কিন্তু একে নিরাপদ করে দিতে হবে। আর আইওএস’কে শিশুদের কাছে নিরাপদ করে দিতে খুব বেশি সময় নষ্ট করে না অ্যাপল।

আইওএস এর ‘প্যারেন্টাল কন্ট্রোল’ এটি। তবে অ্যাপল বলছে ‘রেসট্রিকশন্স’। এখান থেকেই আপনি শিশুর আইফোন বা আইপ্যাড ব্যবহারকে নিশ্চিত করতে পারবেন অনায়াসে, মাত্র ২০ সেকেন্ডে।

এখানে মাত্র ২০ সেকেন্ডে আইওএস নিরাপদ করার পদ্ধতি তুলে ধরা হলো।

১. সেটিংস অ্যাপটি খুলুন।

২. জেনারেলে ট্যাপ করুন।

৩. স্ক্রল করে নিচে যান এবং সেখান থেকে রেসট্রিকশন্স বাছাই করুন।

৪. এবাবেল রেসট্রিকশন্সে ট্যাপ করুন এবং একটি পাসওয়ার্ড দিন।

এই পাসওয়ার্ডটি কখনো বাচ্চাকে দেওয়া যাবে না। এটা কেবল আপনার জন্য। এখন রেসট্রিকশন্সে কেবল কনটেন্ট রেটিং দেওয়া বাকি থাকে। অ্যাপল তার আইওএস-কে ৫ ভাগে নিরাপত্তা দিয়েছে। এগুলো বুঝে নিন।

১. বিল্ট-ইন অ্যাপল অ্যাপ এবং ক্রেডিট কার্ডে প্রবেশে বাধা রয়েছে। এর জন্য অ্যালাউ সেকশনে যেতে হবে। সেখানে ঠিক করে দিন আপনার শিশু কোন কোন অংশে প্রবেশ করতে পারবে। এখান থেকেই আইটিউন স্টোর বা ইন-অ্যাপ পারচেজে প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত করা যায়।

২. আইডিভাইসে বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে বাধা দিতে পারেন শিশুকে। ডিভাইসের কোন কোন বিষয়গুলো আপনার শিশু পরিবর্তন করতে পারবে তা ঠিক করে দেওয়া যায় এখান থেকে। বাকিটুকু পাসওয়ার্ডে নিরাপদ থাকবে।

৩. শিশুর জন্য যে প্রাইভেসি সেটিং করেছেন তা শেয়ার হওয়া বন্ধ করতে পারেন। অ্যাপল এন জন্য ‘ডিজিটাল প্রাইভেসি’ দিয়েছে। প্রাইভেসি অংশের নিচে থেকে আপনি অ্যাপে প্রবেশ বন্ধ করতে পারেন। তা ছাড়া প্রাইভেসি সেটিংস সোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করাও বন্ধ করতে পারেন এখান থেকে।

৪. বাচ্চাদের গেম খেলা বড় যন্ত্রণা হয়ে দাঁড়ায়। তারা কতটুকু গেম খেলতে পারবে তাও ঠিক করে দিতে পারেন। ‘গেম সেন্টার’ অংশে যেকোনো গেম খেলায় বাধা প্রদান করতে পারেন শিশুকে। এখান থেকে মাল্টিপ্লেয়ার গেমসেও নিয়ন্ত্রণ আনা যায়।

৫. ‘অ্যালাইড কনটেন্ট সেকশন’-এ গিয়ে আপনি কোনো মুভি, শো, গান, বই এবং ওয়েবসাইটের রেটিং করতে পারবেন। সেখানে আপনার শিশুর প্রবেশ বন্ধ করতে পারবেন। তারা কোন কোন ছবি দেখতে পারবে এবং কোনগুলোতে ঢুকতে পারবে না তা ঠিক করে দিতে পারবেন। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো ওয়েবসাইট খুঁজে দেখা। বড়দের উপাদান যেসব ওয়েবসাইটে রয়েছে তাতে প্রবেশ বন্ধ রাখতে পারেন আপনি।
সূত্র : সি নেট

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» নোয়াখালীতে মোটর বাইক সহ সকল যান চলাচল বন্ধসহ দোকান বন্ধের নুতন নির্দেশনা জারি

» সুবর্ণচরে ঘাস কাটা নিয়ে বিরোধে কৃষক খুন, আটক ১

» বেগমগঞ্জে বিয়ে করতে যাওয়া বরকে কুপিয়ে হত্যা

» চাটখিলে করোনা সন্দেহে ৪ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্যে চট্রগ্রামে পাঠানো হয়েছে

» ফেনীর সোনাগাজীতে লোকালয় থেকে মেছো বাঘ উদ্ধার

» চাটখিলে বেসরকারী হাসপাতালের কর্মচারীদের পাশে দাঁড়ালেন মালিকপক্ষ

» আসুন মৃত্যুর মিছিল ঠেকাই। শত কষ্ট হলেও বাড়িতে থাকি

» দক্ষিণ আফ্রিকায় লকডাউন আইন অমান্য করায় বর ও কনেসহ ৫৩ গ্রেপ্তার

» লক্ষ্মীপুর উত্তর জয়পুরে স্বেচ্চাসেবী সংগঠনের ত্রান বিতরন

» নোয়াখালীতে সরকারী চাল পাচারের ঘটনায় সে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
ADS170638-2
,

শিশুর জন্য আইফোন বা আইপ্যাডকে নিরাপদ করুন ২০ সেকেন্ডে

আপনার আইফোন বা আইপ্যাডটা মাঝে মধ্যেই বাচ্চার দখলে থাকতে পারে। এমনকি অনেকে জন্মদিন বা অন্য কোনো উপলক্ষে বাচ্চাকে উপহারও দিতে পারেন।
দারুণ জনপ্রিয় একটি স্মার্টফোন বাচ্চার হাতে দিচ্ছেন ঠিক আছে। কিন্তু একে নিরাপদ করে দিতে হবে। আর আইওএস’কে শিশুদের কাছে নিরাপদ করে দিতে খুব বেশি সময় নষ্ট করে না অ্যাপল।

আইওএস এর ‘প্যারেন্টাল কন্ট্রোল’ এটি। তবে অ্যাপল বলছে ‘রেসট্রিকশন্স’। এখান থেকেই আপনি শিশুর আইফোন বা আইপ্যাড ব্যবহারকে নিশ্চিত করতে পারবেন অনায়াসে, মাত্র ২০ সেকেন্ডে।

এখানে মাত্র ২০ সেকেন্ডে আইওএস নিরাপদ করার পদ্ধতি তুলে ধরা হলো।

১. সেটিংস অ্যাপটি খুলুন।

২. জেনারেলে ট্যাপ করুন।

৩. স্ক্রল করে নিচে যান এবং সেখান থেকে রেসট্রিকশন্স বাছাই করুন।

৪. এবাবেল রেসট্রিকশন্সে ট্যাপ করুন এবং একটি পাসওয়ার্ড দিন।

এই পাসওয়ার্ডটি কখনো বাচ্চাকে দেওয়া যাবে না। এটা কেবল আপনার জন্য। এখন রেসট্রিকশন্সে কেবল কনটেন্ট রেটিং দেওয়া বাকি থাকে। অ্যাপল তার আইওএস-কে ৫ ভাগে নিরাপত্তা দিয়েছে। এগুলো বুঝে নিন।

১. বিল্ট-ইন অ্যাপল অ্যাপ এবং ক্রেডিট কার্ডে প্রবেশে বাধা রয়েছে। এর জন্য অ্যালাউ সেকশনে যেতে হবে। সেখানে ঠিক করে দিন আপনার শিশু কোন কোন অংশে প্রবেশ করতে পারবে। এখান থেকেই আইটিউন স্টোর বা ইন-অ্যাপ পারচেজে প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত করা যায়।

২. আইডিভাইসে বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে বাধা দিতে পারেন শিশুকে। ডিভাইসের কোন কোন বিষয়গুলো আপনার শিশু পরিবর্তন করতে পারবে তা ঠিক করে দেওয়া যায় এখান থেকে। বাকিটুকু পাসওয়ার্ডে নিরাপদ থাকবে।

৩. শিশুর জন্য যে প্রাইভেসি সেটিং করেছেন তা শেয়ার হওয়া বন্ধ করতে পারেন। অ্যাপল এন জন্য ‘ডিজিটাল প্রাইভেসি’ দিয়েছে। প্রাইভেসি অংশের নিচে থেকে আপনি অ্যাপে প্রবেশ বন্ধ করতে পারেন। তা ছাড়া প্রাইভেসি সেটিংস সোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করাও বন্ধ করতে পারেন এখান থেকে।

৪. বাচ্চাদের গেম খেলা বড় যন্ত্রণা হয়ে দাঁড়ায়। তারা কতটুকু গেম খেলতে পারবে তাও ঠিক করে দিতে পারেন। ‘গেম সেন্টার’ অংশে যেকোনো গেম খেলায় বাধা প্রদান করতে পারেন শিশুকে। এখান থেকে মাল্টিপ্লেয়ার গেমসেও নিয়ন্ত্রণ আনা যায়।

৫. ‘অ্যালাইড কনটেন্ট সেকশন’-এ গিয়ে আপনি কোনো মুভি, শো, গান, বই এবং ওয়েবসাইটের রেটিং করতে পারবেন। সেখানে আপনার শিশুর প্রবেশ বন্ধ করতে পারবেন। তারা কোন কোন ছবি দেখতে পারবে এবং কোনগুলোতে ঢুকতে পারবে না তা ঠিক করে দিতে পারবেন। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো ওয়েবসাইট খুঁজে দেখা। বড়দের উপাদান যেসব ওয়েবসাইটে রয়েছে তাতে প্রবেশ বন্ধ রাখতে পারেন আপনি।
সূত্র : সি নেট

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd