ADS170638-2

বেগমগঞ্জে মঙ্গল শোভাযাত্রাকে হারাম বলায় ইমাম বরখাস্ত,প্রতিবাদে মুসল্লিদের বিক্ষোভ, পুলিশের গুলিত আহত ১০

প্রিয় নোয়াখালী ডেস্ক:

মঙ্গল শোভাযাত্রাকে হারাম বলায় নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মুফতি ওমর ফারুককে বরখাস্তের প্রতিবাদ ও তাকে পুনর্বহালের দাবিতে ওই মসজিদের মুসল্লিরা বিক্ষোভ করছে। বিক্ষোভ থামাতে লাঠিচার্জ ও গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এ সময় তিনজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১০ জন আহত হন। শুক্রবার (৩ মে) দুপুরে জুম্মার নামাজের পর এ ঘটনা ঘটে।
গুলিবিদ্ধরা হলেন— একলাশপুর এলাকার আলমগীর হোসেনের ছেলে আপন (২০), আতিক উল্যার ছেলে মাহফুজুর রহমান (৩২) ও লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতি উপজেলার চরআফজাল গ্রামের শফিকুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ আলী (২০)। তাদের নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
A
A
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ এপ্রিল (পহেলা বৈশাখের আগে) জুম্মায় আলোচনায় একলাশপুর বাজার জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা ওমর ফারুক পহেলা বৈশাখ পালন ও মঙ্গল শোভাযাত্রা করা হারাম বলে উল্লেখ করেন। পরে বিষয়টি নিয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন ও কয়েকজন প্রতিবাদ করেন। পরবর্তীতে ১৯ সদস্যবিশিষ্ট মসজিদ কমিটির ছয়জন সদস্য জরুরি বৈঠক করে ইমাম ওমর ফারুককে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেন। শুক্রবার (৩ মে) জুম্মার নামাজে আসা মুসল্লিরা এই ঘটনার প্রতিবাদ, কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটির দাবি ও মসজিদের গেইট ও দেওয়ালে লাগানো পোস্টার ছিড়ে বিক্ষোভ করেন। এ সময় মসজিদ প্রাঙ্গণে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মুসল্লিদের ধাওয়া, লাঠিচার্জ ও কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এ সময় তিনজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১০ জন আহত হন।
মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ নিয়ে বিতর্কিত আলোচনা করায় সভাপতি জামাল উদ্দিন কমিটির কয়েকজনকে নিয়ে বৈঠক করে ইমাম ফারুককে চাকরি থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন। এ নিয়ে মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে বেগমগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান শেখ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোস্তফা জাবেদ কাউছার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আগামী সাত দিনের মধ্যে মসজিদের নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার নির্দেশ দেন।’
বেগমগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান শেখ জানান, ঘটনাস্থলে মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেওয়ায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে ফোনে খতিব ওমর ফারুকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

নিউজ ক্রেডিট: বাংলা ট্রিবিউন।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» চাটখিল দলিল লিখক সমিতির সভাপতি দুলাল, সা: সম্পাদক স্বপন পাটোয়ারী

» লক্ষ্মীপুরে যুগান্তরের সাংবাদিককে ইউপি চেয়ারম্যানের মারধর প্রাণনাশের হুমকি

» সংবাদকর্মী সজিবের কেন এই অভিমানী প্রস্তান!

» ফেসবুক গ্রুপ নোয়াখালী রয়েল ড্রিস্টিকের উদ্যোগে মাদ্রাসা ছাত্রদের সম্মানে ইফতার ও ঈদ সামগ্রী বিতরন

» সুবর্ণচরের বধুগঞ্জে স্টুডেন্টস ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত “

» বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার-২

» খিলপাড়া ব্লাড ডোনেট ক্লাবের আয়োজনে ইফতার অনুষ্ঠিত

» যদি শিরোনাম হয় দক্ষিণ আফ্রিকা!

» রামগতিতে ব্যবসায়ীদের নিয়ে “জামায়াতে ইসলামী”র ইফতার!

» চাটখিলে ধান সংগ্রহ উদ্বোধন করলেন ইউএনও দিদারুল আলম

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

add pn
সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
ADS170638-2
,

বেগমগঞ্জে মঙ্গল শোভাযাত্রাকে হারাম বলায় ইমাম বরখাস্ত,প্রতিবাদে মুসল্লিদের বিক্ষোভ, পুলিশের গুলিত আহত ১০

প্রিয় নোয়াখালী ডেস্ক:

মঙ্গল শোভাযাত্রাকে হারাম বলায় নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মুফতি ওমর ফারুককে বরখাস্তের প্রতিবাদ ও তাকে পুনর্বহালের দাবিতে ওই মসজিদের মুসল্লিরা বিক্ষোভ করছে। বিক্ষোভ থামাতে লাঠিচার্জ ও গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এ সময় তিনজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১০ জন আহত হন। শুক্রবার (৩ মে) দুপুরে জুম্মার নামাজের পর এ ঘটনা ঘটে।
গুলিবিদ্ধরা হলেন— একলাশপুর এলাকার আলমগীর হোসেনের ছেলে আপন (২০), আতিক উল্যার ছেলে মাহফুজুর রহমান (৩২) ও লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতি উপজেলার চরআফজাল গ্রামের শফিকুল আলমের ছেলে মোহাম্মদ আলী (২০)। তাদের নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
A
A
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ এপ্রিল (পহেলা বৈশাখের আগে) জুম্মায় আলোচনায় একলাশপুর বাজার জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা ওমর ফারুক পহেলা বৈশাখ পালন ও মঙ্গল শোভাযাত্রা করা হারাম বলে উল্লেখ করেন। পরে বিষয়টি নিয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি জামাল উদ্দিন ও কয়েকজন প্রতিবাদ করেন। পরবর্তীতে ১৯ সদস্যবিশিষ্ট মসজিদ কমিটির ছয়জন সদস্য জরুরি বৈঠক করে ইমাম ওমর ফারুককে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেন। শুক্রবার (৩ মে) জুম্মার নামাজে আসা মুসল্লিরা এই ঘটনার প্রতিবাদ, কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটির দাবি ও মসজিদের গেইট ও দেওয়ালে লাগানো পোস্টার ছিড়ে বিক্ষোভ করেন। এ সময় মসজিদ প্রাঙ্গণে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মুসল্লিদের ধাওয়া, লাঠিচার্জ ও কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এ সময় তিনজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১০ জন আহত হন।
মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ নিয়ে বিতর্কিত আলোচনা করায় সভাপতি জামাল উদ্দিন কমিটির কয়েকজনকে নিয়ে বৈঠক করে ইমাম ফারুককে চাকরি থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন। এ নিয়ে মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে বেগমগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান শেখ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোস্তফা জাবেদ কাউছার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আগামী সাত দিনের মধ্যে মসজিদের নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার নির্দেশ দেন।’
বেগমগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শাহজাহান শেখ জানান, ঘটনাস্থলে মুসল্লিদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেওয়ায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে ফোনে খতিব ওমর ফারুকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

নিউজ ক্রেডিট: বাংলা ট্রিবিউন।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd