ADS170638-2

রামগঞ্জে বাল্য বিয়ে ঠেকাতে পারেনি প্রশাসন


আবু তাহেরঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার চন্ডিপুর মনসা উচ্চ বিদ্রারযের ১০ শ্রেনীর ছাত্রী লিমা আক্তারের (১৬) এর বাল্যবিয়ে ঠেকাতে পারেনি উপজেলা প্রশাসন। লিখিত মুচলিকা দেওয়ার ৪ঘন্টা পরেই বুধবার সন্ধ্যায় জাকজমক ভাবে ছাত্রীর লিমার বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেছে। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার উপজেলা চেয়ারম্যান কক্ষে অনুষ্ঠিত মাসিক আইন শৃংখলা ও সমন্বয় সভায় উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
সুত্রে জানায়, উপজেলার ৫নং দক্ষিন চাঙ্গিরগাও গ্রামের শান্তি ঠাকুর বাড়ির লিটন খানের মেয়ে চন্ডিপুর মনসা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেনীর ছাত্রী লিমা আক্তারের সাথে রামগঞ্জ পৌরসভাধীন কাদের নামের একটি ছেলের সাথে বুধবার পারিবারিকভাবে বিয়ের কাজ শুরু হয় । খবর পেয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া আক্তার শিউলীর জোর তৎপতায় উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিয়ের কাজ বন্ধ রেখে ছাত্রীর পরিবারের সদস্যদের উপজেলা পরিষদে ডেকে এনে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ৩শত টাকার স্ট্যাম্পে প্রাপ্ত বয়স না হওয়ায় পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে লিখিত মুচলিকা নিয়ে কনে ও তার পরিবারের লোকজনদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এ সময় চন্ডিপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন ভুইয়া এবং চাঙ্গিরগাও ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার ইব্রাহিম মিয়া,গ্রাম পুলিশসহ সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। লিখিত মুচলিকা দিয়ে বাড়ি ফিরে ছাত্রীর পরিবার জাক জমক ভাবে বিয়ের কাজ সর্ম্পন করে। উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া আক্তার শিউলী জানান,প্রশাসনের কাছে লিখিত মুচলিকা দেওয়ার পর বিয়ের কাজ সম্পূর্ন করায় আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মর্কতা রিফাত আরা সুমি বলেন,চন্ডিপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন ভূইয়া,ওয়ার্ড মেম্বার ইব্রাহিম মিয়ার উপস্থিতে ছাত্রীর জেঠা আবুল হাসেম লিখিত মুচলিকা দিয়ে বাড়ি ফিরে বিয়ের কাজ সর্ম্পন করার বিষয়টি বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত আইন শৃংখলা সভায় উপস্থাপন করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার মোহাম্মদ রিজাউল করিম বলেন, পাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত লিমার গার্ডিয়ান বুধবার প্রশাসনের কাছে একটি অঙ্গীকারনামা দিয়েছেন। কিন্তু এর পরেও যদি তারা বিয়ে কাজ সম্পন্ন করেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» সোনাইমুড়ীর আ,লীগ নেতা স্বপনকে গ্রেফতার নিয়ে ধুম্রজাল

» চেয়ারম্যান-মেম্বারের শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ নিয়ে ‘গুজব’

» রামগঞ্জে এলডিপির সভাপতি সম্পাদকের বিএনপিতে যোগদান

» ফেনীতে মাদক বিক্রেতার বাড়ি চিহ্নিত করণে সাইনবোর্ড ফেসবুকে ভাইরাল

» সোনাইমুড়ীর ছাত্রলীগ নেতা সুজনকে গ্রেফতারে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

» সোনাইমুড়ীতে ফজর পড়ে বের হয়েই মুসুল্লিরা দেখতে পেলেন খালে ভাসছে লাশ!

» দক্ষিণ আফ্রিকায় যাবার পথে নোয়াখালীর ২ আপন ভাইয়ের মৃত্যু

» সোনাইমুড়ী থানায় আ,লীগের সমাঝোতা বৈঠকে ২ গ্রুপের সংঘর্ষ গুলি ওসিসহ আহত ১২

» লক্ষ্মীপুরে প্রাইভেট পড়তে গিয়ে শিক্ষকের শ্লীলতাহানির শিকার ছাত্রী

» রামগতির চরগাজীতে জমির মালিককে প্রকাশ্যে হত্যার চেষ্টা

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

add pn
সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
ADS170638-2
,

রামগঞ্জে বাল্য বিয়ে ঠেকাতে পারেনি প্রশাসন


আবু তাহেরঃ
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার চন্ডিপুর মনসা উচ্চ বিদ্রারযের ১০ শ্রেনীর ছাত্রী লিমা আক্তারের (১৬) এর বাল্যবিয়ে ঠেকাতে পারেনি উপজেলা প্রশাসন। লিখিত মুচলিকা দেওয়ার ৪ঘন্টা পরেই বুধবার সন্ধ্যায় জাকজমক ভাবে ছাত্রীর লিমার বিয়ের কাজ সম্পন্ন করেছে। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার উপজেলা চেয়ারম্যান কক্ষে অনুষ্ঠিত মাসিক আইন শৃংখলা ও সমন্বয় সভায় উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
সুত্রে জানায়, উপজেলার ৫নং দক্ষিন চাঙ্গিরগাও গ্রামের শান্তি ঠাকুর বাড়ির লিটন খানের মেয়ে চন্ডিপুর মনসা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেনীর ছাত্রী লিমা আক্তারের সাথে রামগঞ্জ পৌরসভাধীন কাদের নামের একটি ছেলের সাথে বুধবার পারিবারিকভাবে বিয়ের কাজ শুরু হয় । খবর পেয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া আক্তার শিউলীর জোর তৎপতায় উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিয়ের কাজ বন্ধ রেখে ছাত্রীর পরিবারের সদস্যদের উপজেলা পরিষদে ডেকে এনে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ৩শত টাকার স্ট্যাম্পে প্রাপ্ত বয়স না হওয়ায় পর্যন্ত বিয়ে দিবে না মর্মে লিখিত মুচলিকা নিয়ে কনে ও তার পরিবারের লোকজনদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এ সময় চন্ডিপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন ভুইয়া এবং চাঙ্গিরগাও ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার ইব্রাহিম মিয়া,গ্রাম পুলিশসহ সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। লিখিত মুচলিকা দিয়ে বাড়ি ফিরে ছাত্রীর পরিবার জাক জমক ভাবে বিয়ের কাজ সর্ম্পন করে। উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া আক্তার শিউলী জানান,প্রশাসনের কাছে লিখিত মুচলিকা দেওয়ার পর বিয়ের কাজ সম্পূর্ন করায় আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মর্কতা রিফাত আরা সুমি বলেন,চন্ডিপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন ভূইয়া,ওয়ার্ড মেম্বার ইব্রাহিম মিয়ার উপস্থিতে ছাত্রীর জেঠা আবুল হাসেম লিখিত মুচলিকা দিয়ে বাড়ি ফিরে বিয়ের কাজ সর্ম্পন করার বিষয়টি বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত আইন শৃংখলা সভায় উপস্থাপন করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার মোহাম্মদ রিজাউল করিম বলেন, পাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত লিমার গার্ডিয়ান বুধবার প্রশাসনের কাছে একটি অঙ্গীকারনামা দিয়েছেন। কিন্তু এর পরেও যদি তারা বিয়ে কাজ সম্পন্ন করেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd