ADS170638-2

ফেনীতে ডিবি পুলিশের সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত

গিয়াস উদ্দিন রনিঃ

ফেনীর সোনাগাজীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ডিবি পুলিশের সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার ইকবাল হোসেন (৩৫) ওরফে ইকবাল ডাকাত নিহত হয়েছে। এ সময় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।
মঙ্গলবার দিবাগত রাত সোয়া তিনটার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের পাঠান বাড়ি সংলগ্ন আজম খান মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি এক নলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে। নিহত ডাকাত সর্দার ইকবাল হোসেন পূর্ব ছাড়াইতকান্দি গ্রামের মৃত আবদুর রব ও গুণধনীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া থানা ছাড়া জেলার ৫টি থানা ও মীরসরাই থানায় মোট ৩৭ টি মামলা রয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গোপন সংবাদে জানতে পারে ছাড়াইতকান্দি গ্রামে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। গোপন সূত্রের ভিত্তিতে ফেনীর ডিবি ও সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের একটি দল ওই গ্রামে যৌথ অভিযান চালায়। পুলিশের আভিযানিক দল ছাড়াইতকান্দি গ্রামের পাঠান বাড়ি সংলগ্ন আজম খান মার্কেটের সামনে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এসময় পুলিশ পাল্টা গুলি করলে ইকবাল গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে এবং তার সহযোগিরা পালিয়ে যায়।
পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি একনলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করে। ইকবালকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। তার মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ, সর্বশেষ চলতি বছরের ২৫ জুলাই রাত দুইটার দিকে তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. সিএস করিমের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় ইকবালের নাম উঠে আসে। গ্রেফতারকৃত ৪ জন ডাকাত তার নেতৃত্বে ডাকাতি করেছে মর্মে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। ইকবাল গ্রেফতারের জন্য হন্য হয়ে খুঁজতে থাকে পুলিশ। ৫ ভাই এক বোনের মধ্যে ইকবাল ৫ম। সে ফেনী জেলা যুবদলের সভাপতি জাকির হোসেন জসিমের সৎ ভাই। গত ৬ মাস পূর্বে ৪১ মাস সাজা খেটে জেলখানা থেকে মুক্তি পেয়েছিল ইকবাল। কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে সে ডাকাতদলের সদস্যদের সংগঠিত করে ফেনী জেলার বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে আসছে। পুলিশের দাবি ইকবাল জেলখানায় থেকেও তার শীষ্যদের দিয়ে ডাকাতি করাতো। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি ও হত্যা সহ ৩৭টি মামলা রয়েছে। এর আগে একাধিক ঘটনায় তার বাড়ি থেকে ডাকাতির মালামাল উদ্ধার করা হয়েছিল। সে পিতা হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি কারাগারে সম্প্রতি মৃতুবরণ কারী পূর্ব সুজাপুর গ্রামের সামছুল হুদার জামাতা ও এক কন্যা সন্তানের জনক।
ফেনীর ডিবি পুলিশের ওসি রঞ্জিত বডুয়া ও সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মঈন উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» সোনাইমুড়ীতে একুশে পরিবহনের ধাক্কায় ৩ মোটর বাইক আরোহী নিহত

» চৌমুহনীতে অগ্নিকান্ডে অর্ধশতাধিক দোকান পুড়ে ছাই, শত কোটি টাকা ক্ষয়ক্ষতির আশংকা

» পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাফেলতি মুছাপুর রেগুলেটর বন্ধ: জলাবদ্ধতায় কৃষকের মাথায় হাত

» চাটখিলের কৃতি সন্তান ড. আজাদ বুলবুলের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন

» সোনাইমুড়ীতে স্কুল ছাত্রী অপহরণের পর ধর্ষণের ঘটনায় ইউপি সদস্য আটক

» সেনবাগে ১টি কুকুরের কামড়ে আহত ১৭

» বিআরটিসির এস্টেট অফিসার হিসেবে যোগদান করলেন কোম্পানীগঞ্জের কৃতি সন্তান আজগর

» রামগঞ্জের শাহাদাত হোসেন সেলিম সহ ৪ এলডিপি নেতা বিএনপিতে ফিরছেন

» অবশেষে ধান ক্ষেত থেকে উদ্ধার হওয়া লাশের পরিচয় মিলেছে

» ব্যরিস্টার মওদুদের বিরুদ্ধে নিজ এলাকায় বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

add pn
সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
ADS170638-2
,

ফেনীতে ডিবি পুলিশের সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত

গিয়াস উদ্দিন রনিঃ

ফেনীর সোনাগাজীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ডিবি পুলিশের সাথে কথিত বন্দুক যুদ্ধে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার ইকবাল হোসেন (৩৫) ওরফে ইকবাল ডাকাত নিহত হয়েছে। এ সময় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।
মঙ্গলবার দিবাগত রাত সোয়া তিনটার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের পাঠান বাড়ি সংলগ্ন আজম খান মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি এক নলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে। নিহত ডাকাত সর্দার ইকবাল হোসেন পূর্ব ছাড়াইতকান্দি গ্রামের মৃত আবদুর রব ও গুণধনীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া থানা ছাড়া জেলার ৫টি থানা ও মীরসরাই থানায় মোট ৩৭ টি মামলা রয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গোপন সংবাদে জানতে পারে ছাড়াইতকান্দি গ্রামে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। গোপন সূত্রের ভিত্তিতে ফেনীর ডিবি ও সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের একটি দল ওই গ্রামে যৌথ অভিযান চালায়। পুলিশের আভিযানিক দল ছাড়াইতকান্দি গ্রামের পাঠান বাড়ি সংলগ্ন আজম খান মার্কেটের সামনে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এসময় পুলিশ পাল্টা গুলি করলে ইকবাল গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে এবং তার সহযোগিরা পালিয়ে যায়।
পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি একনলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করে। ইকবালকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। তার মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ, সর্বশেষ চলতি বছরের ২৫ জুলাই রাত দুইটার দিকে তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. সিএস করিমের ছাড়াইতকান্দি গ্রামের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় ইকবালের নাম উঠে আসে। গ্রেফতারকৃত ৪ জন ডাকাত তার নেতৃত্বে ডাকাতি করেছে মর্মে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। ইকবাল গ্রেফতারের জন্য হন্য হয়ে খুঁজতে থাকে পুলিশ। ৫ ভাই এক বোনের মধ্যে ইকবাল ৫ম। সে ফেনী জেলা যুবদলের সভাপতি জাকির হোসেন জসিমের সৎ ভাই। গত ৬ মাস পূর্বে ৪১ মাস সাজা খেটে জেলখানা থেকে মুক্তি পেয়েছিল ইকবাল। কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে সে ডাকাতদলের সদস্যদের সংগঠিত করে ফেনী জেলার বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে আসছে। পুলিশের দাবি ইকবাল জেলখানায় থেকেও তার শীষ্যদের দিয়ে ডাকাতি করাতো। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি ও হত্যা সহ ৩৭টি মামলা রয়েছে। এর আগে একাধিক ঘটনায় তার বাড়ি থেকে ডাকাতির মালামাল উদ্ধার করা হয়েছিল। সে পিতা হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি কারাগারে সম্প্রতি মৃতুবরণ কারী পূর্ব সুজাপুর গ্রামের সামছুল হুদার জামাতা ও এক কন্যা সন্তানের জনক।
ফেনীর ডিবি পুলিশের ওসি রঞ্জিত বডুয়া ও সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মঈন উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd