আফ্রিকায় বন্ধু লরেন্সের মৃত্যুতে হাতিদের ভালোবাসা প্রকাশ

মো.শরীফ উদ্দিন, দক্ষিণ আফ্রিকাঃ

পশু আর মানুষের সেই প্রাচীন বন্ধুত্ব বর্তমানে তেমন চোখে পড়েনা। তাও আবার হাতির সঙ্গে বন্ধুত্ব! সত্যি এটি অদ্ভুত দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়াজুলুতে বসবাসরত অ্যান্থনি পরিবার শোকে কাতর। তাঁদের কর্তা লরেন্স অ্যান্থনি মারা গেছেন তিন দিন আগে, হার্ট অ্যাটাকে। শোক তখনো কুয়াশার মতো চাদর বিছিয়ে রয়ে গেছে। এ রকম সময়ে সবাই খেয়াল করল, বন্য হাতির দুটো দল সারিবদ্ধভাবে আসছে লরেন্সের বাড়ির দিকেই। পুত্র ডিলান অ্যান্থনি বের হয়ে এসে দেখল, এরা তার বাবার হাতে বড় হওয়া হাতি। লরেন্সের মৃত্যুতে শোক জানানোর জন্য প্রায় ১২ মাইল দূরের জুলুল্যান্ডের বন থেকে হাতিগুলো এসেছে।

কী অদ্ভুত ব্যাপার! দুই দিন ধরে হাতিগুলো বাড়ির সামনে চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকল, তাদের বন্ধুকে স্মরণ করে। হ্যাঁ, ওদের বন্ধুই ছিলেন লরেন্স।

১৯৯৯ সালের কথা, এই বন্য হাতিদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে সেখানকার প্রশাসন ওদের মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। বাঁচাতে এগিয়ে আসেন লরেন্স। নিজে দায়িত্ব নিয়ে হাতির পালগুলোকে দেখাশোনা করে আদরযত্নের সহিত বড় করতে থাকেন। তখন হাতিদের সঙ্গে তাঁর নিবিড় এক সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

তিনি যেমন হাতিদের বুঝতেন, হাতিরাও বুঝত তাঁর কথা, ইশারা। পশু আর মানুষের সেই প্রাচীন বন্ধুত্ব! হাতির সঙ্গে বন্ধুত্বের গল্প নিয়ে বইও লিখেছেন লরেন্স অ্যান্থনি। বানাতে চেয়েছিলেন ডকুমেন্টারিও। মৃত্যু সে সুযোগ দিল না।

ওদিকে বন্ধুর মৃত্যু টের পেয়ে শোক জানাতে হাতিরা ছুটে এসেছিল দল বেঁধে। কিন্তু তারা কীভাবে এই খবর টের পেল, সেটা এক রহস্য! আরও অদ্ভুত ব্যাপার হলো, প্রতিবছর মার্চের ৭ তারিখ লরেন্সের মৃত্যুবার্ষিকীতে হাতিগুলো এসে উপস্থিত হয় ওই বাড়িতে। এটাকেও রহস্যময় মনে হচ্ছে? তাহলে বলি শোনো, একে বলে বন্ধুর প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» সোনাইমুড়ীতে শিশু অপহরণ, ২ অপহরণকারী আটক

» মুক্তমতঃ প্রহসনের লকডাউন ও আমাদের ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট

» চাটখিলে সুবিধা বঞ্চিত শিশুরা পেলো ঈদ জামা

» মসজিদে ঢুকে নোবিপ্রবির সহকারী রেজিস্ট্রারকে ছুরিকাঘাত

» দক্ষিণ আফ্রিকায় জোহানসবার্গ সিটিতে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

» সোনাইমুড়ীর দেওটিতে বিএনপি নেতাদের উপহার প্রদান ও খালেদা জিয়ার জন্যে দোয়া

» সোনাইমুড়ীর আমিশাপাড়ায় মাদক ব্যাবসায়ীদের অভয়ারণ্য

» চাটখিলে যুবদলের কমিটি পূনঃ গঠনের দাবিতে ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম

» বেগমগঞ্জে নববধূকে গলাটিপে হত্যা, স্বামী আটক

» একরাম চৌধুরী ৬ তারিখের মধ্যে আমাকে হত্যা করবে

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

আফ্রিকায় বন্ধু লরেন্সের মৃত্যুতে হাতিদের ভালোবাসা প্রকাশ

মো.শরীফ উদ্দিন, দক্ষিণ আফ্রিকাঃ

পশু আর মানুষের সেই প্রাচীন বন্ধুত্ব বর্তমানে তেমন চোখে পড়েনা। তাও আবার হাতির সঙ্গে বন্ধুত্ব! সত্যি এটি অদ্ভুত দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়াজুলুতে বসবাসরত অ্যান্থনি পরিবার শোকে কাতর। তাঁদের কর্তা লরেন্স অ্যান্থনি মারা গেছেন তিন দিন আগে, হার্ট অ্যাটাকে। শোক তখনো কুয়াশার মতো চাদর বিছিয়ে রয়ে গেছে। এ রকম সময়ে সবাই খেয়াল করল, বন্য হাতির দুটো দল সারিবদ্ধভাবে আসছে লরেন্সের বাড়ির দিকেই। পুত্র ডিলান অ্যান্থনি বের হয়ে এসে দেখল, এরা তার বাবার হাতে বড় হওয়া হাতি। লরেন্সের মৃত্যুতে শোক জানানোর জন্য প্রায় ১২ মাইল দূরের জুলুল্যান্ডের বন থেকে হাতিগুলো এসেছে।

কী অদ্ভুত ব্যাপার! দুই দিন ধরে হাতিগুলো বাড়ির সামনে চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকল, তাদের বন্ধুকে স্মরণ করে। হ্যাঁ, ওদের বন্ধুই ছিলেন লরেন্স।

১৯৯৯ সালের কথা, এই বন্য হাতিদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে সেখানকার প্রশাসন ওদের মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। বাঁচাতে এগিয়ে আসেন লরেন্স। নিজে দায়িত্ব নিয়ে হাতির পালগুলোকে দেখাশোনা করে আদরযত্নের সহিত বড় করতে থাকেন। তখন হাতিদের সঙ্গে তাঁর নিবিড় এক সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

তিনি যেমন হাতিদের বুঝতেন, হাতিরাও বুঝত তাঁর কথা, ইশারা। পশু আর মানুষের সেই প্রাচীন বন্ধুত্ব! হাতির সঙ্গে বন্ধুত্বের গল্প নিয়ে বইও লিখেছেন লরেন্স অ্যান্থনি। বানাতে চেয়েছিলেন ডকুমেন্টারিও। মৃত্যু সে সুযোগ দিল না।

ওদিকে বন্ধুর মৃত্যু টের পেয়ে শোক জানাতে হাতিরা ছুটে এসেছিল দল বেঁধে। কিন্তু তারা কীভাবে এই খবর টের পেল, সেটা এক রহস্য! আরও অদ্ভুত ব্যাপার হলো, প্রতিবছর মার্চের ৭ তারিখ লরেন্সের মৃত্যুবার্ষিকীতে হাতিগুলো এসে উপস্থিত হয় ওই বাড়িতে। এটাকেও রহস্যময় মনে হচ্ছে? তাহলে বলি শোনো, একে বলে বন্ধুর প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd