দক্ষিণ আফ্রিকায় নির্মমভাবে ফেনী-নোয়াখালীর ২যুবককে হত্যা

 


মো.শরীফ উদ্দিন, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকেেঃ

দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের লেনেসিয়াতে তানিম আহমদ (৩৩) নামে বাংলাদেশি খুন হয়েছেন।

শুক্রবার (১৮ জুন) লেনেসিয়ার এক্স-১০ এলাকায় সন্ধ্যার ৬টার দিকে নিজ দোকানে ঘটনাটি ঘটে।

জানা যায়, গত সপ্তাহে একটি ডাকাতদল তানিমের দোকানে ঢুকে কয়েকজনের কাছ থেকে নগদ টাকা পয়সা ও মোবাইল নিয়ে যায়। সেই ঘটনার সিটি ফুটেজ তানিম ও পার্টনাররা ফেইসবুক এবং স্থানীয়দের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পোস্ট করা হয়।

আজ শুক্রবার সন্ধায় আবারো ডাকাতদল দোকানে ঢুকেই গুলি ছোড়ে। এতে দোকানে থাকা অন্যরা নিরাপদে ভিতরে চলে যায়। দোকানের কাউন্টার সম্পূর্ণ বাগলার করা। তাই তানিম ভিতরে যেতে পারেনি। এসময় ডাকাতদল তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে সে কাউন্টারের নিচে লুকিয়ে যায়। পরে হ্যামার দিয়ে কাউন্টারের গ্রীল ভেঙে ভেতরে ঢুকে ডাকাতদল তানিমের মাথায় গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পালিয়ে যাওয়ার সময় দোকানের ক্যাশে থাকা নগদ অর্থ, সিগারেট সহ সিসি টিভির ডিস্ক খুলে নিয়ে যায় ডাকাতদল।

ধারণা করা হচ্ছে, গত সপ্তাহের বিষয়টি স্থানীয়দের কমিউনিটিতে সিটি ফুটেজ ছড়িয়ে যাবার কারণে ডাকাতদল টার্গেট নিয়েই আজকের ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে।

নিহত তানিমের বাড়ি ফেনী জেলার দাগনভুঞা উপজেলার ৫নং ইয়াকুব পুর ইউনিয়নের দুধমুখার মিদ্দারহাট তাজ মােহন পাটােয়ারি বাড়ির আবুল কাশেমের ছেলে। তিনি ৫বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় আসেন। গত সপ্তাহে তানিম নতুন পারমিট (ভিসা) পেয়েছেন। দেশে যাবার প্রস্তুতিও নিচ্ছিলেন। কিন্তু দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসীদের বুলেটে তানিমের স্বপ্ন আর পরিবারের আশা ধুলিসাৎ হয়ে গেলো।

দেশে গতকাল তার বোনের বিয়ে শেষ হয়েছে। আজ তাদের বাড়ীতে ছিলো উৎসবমূখর পরিবেশ। বিদেশ থেকে তানিমের মৃত্যুতে সকল উৎসব অল্যান হয়ে যায়। তার মৃত্যুতে পরিচিতদের মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

এদিকে, দক্ষিণ আফ্রিকায় ছয় মাসের ব্যবধানে আফ্রিকার দেশ মালাউইয়ি কর্মচারীর হাতে নিজ দোকানে মিজানুর রহমান বাসু (৩৮) নামে বাংলাদেশি খুন হয়েছে।

রবিবার (১৩ জুন) রাতে প্রতিদিনের মতো কাজ শেষ করে নিজ দোকানের পেছনে মালাউয়ি কর্মচারী সহ ঘুমাতে যান মিজানুর রহমান। তার দোকানের পাশে একটি এটিএম বুথ রয়েছে। মধ্যরাতে দোকানের কর্মচারী উঠে সেই এটিএম বুথ ভেঙ্গে টাকা নিতে চাইলে মিজানুর রহমান বাধা হয়ে দাড়াবেন ভেবে হত্যার উদ্দেশ্যে ঘুমন্ত অবস্থায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে।

পরদিন সোমবার সকালে মিজানুর রহমানের দোকান বন্ধ দেখে স্থানীয়রা তার ভাইকে খবর দেন। পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থান করা মিজানুর রহমানের ভাই এসে দরজা ভেঙ্গে তাকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পান। সাথে সাথে স্থানীয় লেরাতু হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। আজ মঙ্গলবার রাত ১টার সময় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মিজানুর রহমান মারা যান।

নিহত মিজানুর রহমান নোয়াখালী বেগমগঞ্জের আলাইয়ারপুর ইউনিয়নের আমানউল্লাপুর গ্রামের বাসিন্দা। দেশে স্ত্রী, ও এক কন্যা সন্তান হয়েছে।

তিনি জোহানেসবার্গ শহরের নিকটবর্তী রেন্ডফন্টেইনে ২০০৭ সাল থেকে বসবাস করে আসছিলেন। দোকান পরিচালনার জন্য তিনি কর্মচারী রেখেছিলেন। মালাউয়ি কর্মচারী ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

Share Button

সর্বশেষ আপডেট



» চাটখিল উপজেলা ছাত্রলীগে জাকির সভাপতি তুষার সাঃ সম্পাদক

» চাটখিলে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক ফয়েজসহ গ্রেফতার ৩

» প্রথম বিয়ের ৩দিনের মধ্যে ২য় বিয়ে করতে গিয়ে ব্যাংক কর্মকর্তা শ্রীঘরে

» চাটখিলে একমাত্র বোনকে মেরে ফেলার হুমকি আপন ভাইদের,মাকেও দিচ্ছেনা ভরন পোষন

» চাটখিলে মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের ওপর হামলার অভিযোগ

» দক্ষিণ আফ্রিকায় শ্বাসরুদ্ধ করে বেগমগঞ্জের রেমিটেন্স যোদ্ধাকে খুন

» ভাইস চেয়ারম্যানের বাড়িতে হামলার পর শান্তির প্রস্তাব কাদের মির্জার

» সুবর্ণচরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ

» বসুরহাট পৌরসভা ভবনে আটকে রেখে অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভারকে নির্যাতনের অভিযোগ

» সৌদির সাথে মিল রেখে নোয়াখালীর ৯ মসজিদে ঈদের নামাজ আদায়

ফেইসবুকে প্রিয় নোয়াখালী

সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]
Desing & Developed BY Trust soft bd
,

দক্ষিণ আফ্রিকায় নির্মমভাবে ফেনী-নোয়াখালীর ২যুবককে হত্যা

 


মো.শরীফ উদ্দিন, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকেেঃ

দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের লেনেসিয়াতে তানিম আহমদ (৩৩) নামে বাংলাদেশি খুন হয়েছেন।

শুক্রবার (১৮ জুন) লেনেসিয়ার এক্স-১০ এলাকায় সন্ধ্যার ৬টার দিকে নিজ দোকানে ঘটনাটি ঘটে।

জানা যায়, গত সপ্তাহে একটি ডাকাতদল তানিমের দোকানে ঢুকে কয়েকজনের কাছ থেকে নগদ টাকা পয়সা ও মোবাইল নিয়ে যায়। সেই ঘটনার সিটি ফুটেজ তানিম ও পার্টনাররা ফেইসবুক এবং স্থানীয়দের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পোস্ট করা হয়।

আজ শুক্রবার সন্ধায় আবারো ডাকাতদল দোকানে ঢুকেই গুলি ছোড়ে। এতে দোকানে থাকা অন্যরা নিরাপদে ভিতরে চলে যায়। দোকানের কাউন্টার সম্পূর্ণ বাগলার করা। তাই তানিম ভিতরে যেতে পারেনি। এসময় ডাকাতদল তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে সে কাউন্টারের নিচে লুকিয়ে যায়। পরে হ্যামার দিয়ে কাউন্টারের গ্রীল ভেঙে ভেতরে ঢুকে ডাকাতদল তানিমের মাথায় গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পালিয়ে যাওয়ার সময় দোকানের ক্যাশে থাকা নগদ অর্থ, সিগারেট সহ সিসি টিভির ডিস্ক খুলে নিয়ে যায় ডাকাতদল।

ধারণা করা হচ্ছে, গত সপ্তাহের বিষয়টি স্থানীয়দের কমিউনিটিতে সিটি ফুটেজ ছড়িয়ে যাবার কারণে ডাকাতদল টার্গেট নিয়েই আজকের ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে।

নিহত তানিমের বাড়ি ফেনী জেলার দাগনভুঞা উপজেলার ৫নং ইয়াকুব পুর ইউনিয়নের দুধমুখার মিদ্দারহাট তাজ মােহন পাটােয়ারি বাড়ির আবুল কাশেমের ছেলে। তিনি ৫বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় আসেন। গত সপ্তাহে তানিম নতুন পারমিট (ভিসা) পেয়েছেন। দেশে যাবার প্রস্তুতিও নিচ্ছিলেন। কিন্তু দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসীদের বুলেটে তানিমের স্বপ্ন আর পরিবারের আশা ধুলিসাৎ হয়ে গেলো।

দেশে গতকাল তার বোনের বিয়ে শেষ হয়েছে। আজ তাদের বাড়ীতে ছিলো উৎসবমূখর পরিবেশ। বিদেশ থেকে তানিমের মৃত্যুতে সকল উৎসব অল্যান হয়ে যায়। তার মৃত্যুতে পরিচিতদের মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

এদিকে, দক্ষিণ আফ্রিকায় ছয় মাসের ব্যবধানে আফ্রিকার দেশ মালাউইয়ি কর্মচারীর হাতে নিজ দোকানে মিজানুর রহমান বাসু (৩৮) নামে বাংলাদেশি খুন হয়েছে।

রবিবার (১৩ জুন) রাতে প্রতিদিনের মতো কাজ শেষ করে নিজ দোকানের পেছনে মালাউয়ি কর্মচারী সহ ঘুমাতে যান মিজানুর রহমান। তার দোকানের পাশে একটি এটিএম বুথ রয়েছে। মধ্যরাতে দোকানের কর্মচারী উঠে সেই এটিএম বুথ ভেঙ্গে টাকা নিতে চাইলে মিজানুর রহমান বাধা হয়ে দাড়াবেন ভেবে হত্যার উদ্দেশ্যে ঘুমন্ত অবস্থায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে।

পরদিন সোমবার সকালে মিজানুর রহমানের দোকান বন্ধ দেখে স্থানীয়রা তার ভাইকে খবর দেন। পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থান করা মিজানুর রহমানের ভাই এসে দরজা ভেঙ্গে তাকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পান। সাথে সাথে স্থানীয় লেরাতু হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। আজ মঙ্গলবার রাত ১টার সময় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মিজানুর রহমান মারা যান।

নিহত মিজানুর রহমান নোয়াখালী বেগমগঞ্জের আলাইয়ারপুর ইউনিয়নের আমানউল্লাপুর গ্রামের বাসিন্দা। দেশে স্ত্রী, ও এক কন্যা সন্তান হয়েছে।

তিনি জোহানেসবার্গ শহরের নিকটবর্তী রেন্ডফন্টেইনে ২০০৭ সাল থেকে বসবাস করে আসছিলেন। দোকান পরিচালনার জন্য তিনি কর্মচারী রেখেছিলেন। মালাউয়ি কর্মচারী ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

Share Button

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



web-ad

সর্বশেষ আপডেট





সম্পাদক ও প্রকাশক:: কামরুল ইসলাম কানন।
যোগাযোগ:: ০১৭১২৯৮৩৭৫১।
ইমেইল [email protected]

Developed BY Trustsoftbd